ছবি: সংগৃহীত
বাণিজ্য

সবজির চড়া দামে হতাশ ক্রেতারা 

নিজস্ব প্রতিবেদক: শীতকালে সাধারণত বাজারে লাউ, মিষ্টি কুমড়া, ফুলকপি, বাঁধাকপি, দেশি পেঁয়াজ, ভারতীয় পেঁয়াজ, বেগুন, মূলা, লালশাক, পালংশাক, পটোল, ঢেড়স, বরবটি, ঝিঙা, পেঁপে, আলু, করলা, কচু, শসাসহ বিভিন্ন ধরনের সবজিতে ভরপুর থাকে।

আরও পড়ুন: ১৫ দিনেও কার্যকর হয়নি নির্ধারিত দাম

আগাম বেশ কিছু শীতকালীন সবজি এরই মধ্যে বাজারে আসতে শুরু করেছে। এর মধ্যে হাতে গোনা কিছু সবজির দাম নাগালের মধ্যে থাকলেও বাকিগুলার দাম আকাশ ছোঁয়া।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে এখনো পর্যাপ্ত সবজি আসেনি। তাই দাম তুলনামূলক বেশি। শীত আসার সাথে সাথে এসবের দাম আবার কমে আসবে।

শুক্রবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকালে রাজধানীর বাড্ডা, রামপুরা এলাকার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি শিম বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা দরে, চায়না গাজর ১৪০ টাকা, মূলা ৬০ থেকে ৭০ টাকা দরে।

আরও পড়ুন: ২০৩০ সালের মধ্যে যক্ষ্মা নির্মূল হবে

প্রতি পিস ফুলকপি ও বাঁধাকপির দাম ৬০ টাকা। প্রতি কেজি গোল বেগুন ১০০ টাকা, লম্বা বেগুন ৮০ টাকা, বরবটি ১০০ টাকা, করলা ৮০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, ঢেঁড়স ৬০ টাকা, পেঁপে ৪০ টাকা, ঝিঙে ৬০ টাকা, ধুন্দল ৬০ টাকা, কচুরমুখি ৯০ টাকা এবং কচুর লতি ৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

প্রতি পিস চাল কুমড়া ৬০ টাকা ও লাউ ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, কাঁচা কলা প্রতি হালি ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এ সময় বাজার করতে আসা বেসরকারি চাকরিজীবী মাহমুদুল হাসান বলেন, আজকে বাজারে সবকিছুরই দাম বেশি মনে হচ্ছে। মূলার কেজি ৬০ টাকা, যা সাধারণত ৩০-৪০ টাকার মধ্যে থাকে। এছাড়া ঢেঁড়শের কেজিও ৬০ টাকা। গত ২ দিন আগেও ছিল ৪০ টাকা।

আরও পড়ুন: ঢাকা বিশ্বের সবচেয়ে ধীরগতির শহর

বাজারে কোনো পণ্যের দামেই নিয়ন্ত্রণ নেই। নিজেদের ইচ্ছে মতো যখন ইচ্ছে দাম বাড়িয়ে নিচ্ছে ব্যবসায়ীরা। আমি মনে করি, এটা সরকারের বড় ব্যর্থতা। বাজারে শিম এসেছে আরও দুই সপ্তাহ আগে। তারপরও দাম ২০০ টাকা কেজি।

আরেক ক্রেতা রোকেয়া আক্তার বলেন, বাজারে জিনিসপত্রের এতো দাম। সাধারণ মানুষের কেনা মতোর অবস্থা নেই। যে সবজিরই দাম জিজ্ঞেস করি, ৫০-৬০ টাকার নিচে কিছুই নেই। বাজারে এসে হতাশ হয়ে ফিরে যেতে হয়।

আরও পড়ুন: সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত

মাছ-মাংস কেনার তো অবস্থা নেই। ভর্তা-ভাত, সবজি খেয়ে থাকবো, তারও অবস্থা নেই। আমরা গরীব মানুষ। কতোটা বিপদে আছি বলে বোঝানোর ভাষা নেই।

সবজির দাম নিয়ে রামপুরা বাজারের সবজি বিক্রেতা নুরুজ্জামান বাবু জানান, শীতের সবজি বাজারে এলেও চাহিদা তুলনায় পরিমাণ কম। আমরা চাহিদা মতো আড়ত থেকে কিনতে পারছি না। তাই বাধ্য হয়ে একটু বেশি দামে বিক্রি করতে হয়।

দাম বেশি হওয়ার আরেকটি কারণ, সার-কীটনাশকের দাম অনেক বেশি। সেই সাথে মজুরির দামও বেড়েছে। সব মিলিয়ে কৃষক পর্যায়েই দাম কিছুটা বেশি। সেটা আবার বিভিন্ন হাত ঘুরে আমাদের কাছে আসে। তাই স্বাভাবিকভাবেই দাম বেশি হওয়ার কথা।

আরও পড়ুন: খালেদা জিয়ার চিকিৎসার মতামত রোববার

আরেক বিক্রেতা রফিকুল ইসলাম বলেন, এবার আগাম সবজির চাষ হয়েছে। তাই বাজারেও দ্রুত চলে এসেছে। বেশ কিছুদিন ধরে বাজারে সবজির দাম বেশি। এর কারণ, এখনো আসলে শীতকালীন সবজির মৌসুম পুরোপুরি আসেনি। এ কারণে দাম বেশি।

তিনি বলেন, বাজারে ফুলকপি-বাঁধাকপি থাকলেও সাইজ অনেক ছোট। শীতের একেকটা কপি যেখানে দুই থেকে আড়াই কেজি হয়, সেখানে এখন সর্বোচ্চ ৩০০-৪০০ গ্রাম হচ্ছে। মূলত শীতকাল আসার আগে সবজির দাম বাড়তিই থাকে।

আরও পড়ুন: বঙ্গবন্ধুর চিন্তা ছিল যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাংলাদেশ গড়ার

কারওয়ান বাজারসহ অন্যান্য সব পাইকারি বাজারে সব ধরনের সবজিই প্রতি পাল্লায় দাম বেড়েছে। তাই আমাদের কেনার খরচ আগের চেয়ে বেশি লাগছে।

এছাড়া পরিবহন, শ্রমিক খরচ, রাস্তা খরচ, যেখানে দোকান বসাচ্ছি তার খরচ সব মিলিয়ে খুচরা বাজারে সবজির দাম বাড়তি যাচ্ছে।

সান নিউজ/এনজে

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

নবরূপে ভালুকার গ্রীণ অরণ্য পার্ক

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: অবক...

ইছামতীর তীরে সাধুসঙ্গ

মো. নাজির হোসেন, মুন্সীগঞ্জ: মুন্...

বিয়ে করছেন তাপসী পান্নু

বিনোদন ডেস্ক: বলিউড পাড়ায় বিয়ের স...

লক্ষ্মীপুরে আগুনে ১১ দোকান পুড়ে ছাই

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরে...

মাদক খেলে পুলিশের চাকরি থাকবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুলিশের মহাপরিদ...

লিপ ডে, বছরের অতিরিক্ত একটি দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজকের ঘটনা কাল...

টিভিতে আজকের খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক: প্রতিদিনের মতো আজ...

বৃহস্পতিবার রাজধানীর যেসব মার্কেট বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রতি সপ্তাহের একেক দিন বন্ধ থাকে রাজধানীর...

পণ্যের মূল্য নিয়ে গুজবে কান দেবেন না

নিজস্ব প্রতিবেদক: নিত্যপণ্যের দাম...

ভিকারুননিসার ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল 

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি বছরের জানু...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা