আন্তর্জাতিক

তাৎক্ষণিক হুমকিতে বিশ্বের প্রতিটি শিশু

‘জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব ও নিচু মানের খাবার থেকে স্বাস্থ্য ঝুঁকি থেকে শিশুদের রক্ষায় ব্যর্থ হচ্ছে বিশ্ব। এতে বিশ্বের প্রতিটি শিশু ‘তাৎক্ষণিক হুমকির’ (ইমিডিয়েট থ্রেট) মুখে রয়েছে।’
আজ বুধবার জাতিসংঘের এক রিপোর্টে এসব কথা বলা হয়েছে। শিশু ও কিশোর স্বাস্থ্য বিষয়ক কমপক্ষে ৪০ জন আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞের মতে, কার্বন নির্গমন, প্রকৃতির ক্ষতিসাধন, উচ্চ মাত্রার ক্যালোরি এবং প্রক্রিয়াজাত খাদ্য থেকে যে ক্ষতি হচ্ছে তা থেকে পরবর্তী প্রজন্মকে রক্ষায় পর্যাপ্ত করছে না বিশ্বের কোনো একটি দেশ। তারা বলেছেন, অতিমাত্রায় কার্বন নির্গমন সব শিশুর ভবিষ্যতকে হুমকিতে ফেলছে। এতে তাদের ওপর অতিরিক্ত স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। তাপদাহ থেকে শুরু করে মৌসুমি বিভিন্ন রোগের বিস্তার ঘটাচ্ছে এসব বিষয়। আর ওই কার্বন নির্গমণ করছে বেশি ধনী দেশগুলো।

আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই রিপোর্ট অনুমোদন করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইউনিসেফ। এতে উচ্চ মাত্রার চর্বি, চিনি সমৃদ্ধ খাবার, এলকোহল ও তামাকজাত পণ্যের বাজারজাতকরণ থেকে শিশুরা যে ক্ষতির মুখোমুখি হচ্ছে তার ওপর জোর দেয়া হয়েছে। ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের ইন্টারন্যাশনাল চাইল্ড হেলথের ডাইরেক্টর এবং ইন্টারন্যাশনাল চাইল্ড হেলথের প্রফেসর অ্যান্থনি কস্টেলো বলেছেন, সবচেয়ে বড় খবরটি হলো বিশ্বের একটি দেশও বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য শিশুদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা করছে না। তিনি বলেন, যখন আপনি দেখবেন বায়ু দূষণের কারণে শিশুদের ফুসফুসের মারাত্মক ক্ষতি হয়ে গেছে তখন দেখবেন হাতে খুব কম সময়ই আছে এর সমাধান করার জন্য। আমাদের কাছে এর সমাধান আছে। কিন্তু আমাদের নেই রাজনৈতিক নেতৃত্ব, যারা এই সমাধানটা করবেন।

রিপোর্টটি প্রকাশিত হয়েছে দ্য ল্যানচেট নামের স্বাস্থ্য বিষয়ক আন্তর্জাতিক জার্নালে। এতে ১৮০টি দেশের শিশুদের বেঁচে থাকা, শিক্ষা ও পুষ্টির বিষয় আমলে নিয়ে র‌্যাংকিং করা হয়েছে। এতে ধনী দেশ যেমন নরওয়ে ও নেদারল্যান্ডের তুলনায় দুর্বল পারফর্ম করছে অনুন্নত দেশ যেমন মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র, চাদ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক টেডরোস আধানম ঘেব্রেয়েসাস বলেছেন, বিশ্ব এখনকার শিশু ও তরুণদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থ হচ্ছে। তাদের স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে ব্যর্থ হচ্ছে। তাদের অধিকার রক্ষায় ব্যর্থ হচ্ছে। তাদের এই গ্রহকে রক্ষা করতে ব্যর্থ হচ্ছে।

রিপোর্টে আরো বলা হয়েছে, ৫ বছর বয়সের নিচে এমন প্রায় ২৫ কোটি শিশু নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে ঝুঁকিতে আছে। তারা বসবাস করছে অপুষ্টি, দারিদ্র্যে। একই সঙ্গে বিশ্বে মোটা হয়ে যাওয়া শিশুর সংখ্যা ১৯৭৫ সাল থেকে ১১ গুন বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ১২ কোটি ৪০ লাখ। কিছু কিছু দেশের শিশুরা এক বছরে টেলিভিশনে ৩০ হাজারের মতো বিজ্ঞাপন দেখে। যেমন অস্ট্রেলিয়ায় শুধু এক বছরে শিশুরা এলকোহলের বিজ্ঞাপন দেখে ৫ কোটি ১০ লাখ বার। কস্টেলো বলেন, এসব শিল্পকে নিয়মতান্ত্রিকতায় আনতে ব্যর্থ হয়েছে বিশ্ব। এ পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে যেতে পারে। কারণ, শিশুদের উদ্দেশ্য করে এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচুর বিজ্ঞাপন দেয়া হয়।

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

নববর্ষের শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: পহেলা বৈশাখকে স...

ঈদের পরদিনও বাস ভাড়া দ্বিগুণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঈদের পরদিনও রাজধানী ছাড়ছেন মানুষ। তবে তা ঈ...

আগামীকাল চৈত্র সংক্রান্তি 

সান নিউজ ডেস্ক: আগামীকাল চৈত্র সং...

পাহাড়ে ৩ দিনব্যাপী বৈসাবি উৎসব শুরু

জেলা প্রতিনিধি: রাঙ্গামাটিতে কাপ্তাই হ্রদে ফুল ভাসানোর মধ্য...

পহেলা বৈশাখের আগে ইলিশের দাম চড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ ঈদের দ্বিতীয়...

দুই মেম্বার সমর্থকদের সংঘর্ষ, আহত ১৫

জেলা প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জমিতে সেচের পানি দেওয়াকে কেন...

দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ, নিহত ৩

জেলা প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ে দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে ৩ জন ন...

টিকটক বানাতে গিয়ে কিশোরের মৃত্যু

জেলা প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামে নদীতে টিকটকের ভিডিও বানাতে গিয়ে প...

জলদস্যুদের চেয়েও ভয়ংকর বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক : সোমালিয়ার জলদস্যুদের চেয়েও অনেক বেশি ভয়ংক...

নববর্ষে বন্ধ থাকবে যেসব সড়ক

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা