ছবি: সংগৃহীত
বাণিজ্য

ফসলী মাঠে পাকা ধান, বন্যা আতংকে কৃষকরা

এস এম সাইফুল ইসলাম কবির, বাগেরহাট: বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে চলতি আমন মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলনে ফসলী মাঠজুড়ে সবত্রই পাকা ধানে মৌ মৌ গন্ধে মাতোয়ারা কৃষক। তবে ঘূর্ণিঝড় ‘মিগজাউম’-এর কারণে বন্যার আতংকে রয়েছেন সাধারণ কৃষকরা।

আরও পড়ুন: বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস

সরেজমিন ও উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরে এ উপজেলায় ২০ হাজার ৫৩৫ হেক্টর জমিতে দেশী আমন ধান ফসল ও উচ্চ ফলনশীল জাতের উফশী ধান ৫৮৫০ হেক্টর জমিতে উৎপাদন করেছে কৃষকরা।

১৬ টি ইউনিয়নসহ পৌরসভায় আগাম জাতের ধান কর্তন শুরু হয়েছে। সেই মুর্হুতে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপে ঘূর্ণিঝড় মিগজাউম আতংকে পড়েছে তারা।

বলইবুনিয়া ইউনিয়নে ১১৮০ হেক্টর জমিতে আমন ফসলের মধ্যে ১০৮০ হেক্টর উচ্চ ফলনশীল জাতের এবং ১০০ হেক্টর জমিতে দেশী আমন ফলন হয়েছে। এর মধ্যে ২০% জমির ধান কর্তন করে ঘরে তুলতে পেরেছে কৃষকরা। বাকি ধান মাঠে থাকায় দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা। ২০/২৫ দিনের মধ্যে এ ধান কাটা শেষ হবে।

আরও পড়ুন: বন্দরে ৩ নম্বর সংকেত

কালিকাবাড়ি গ্রামের কৃষক জাহাঙ্গীর আলম, গফফার শেখ, দোনা গ্রামের আজিজুল হাকিম, আমবাড়িয়া গ্রামের কৃষক পাইক, দৈবজ্ঞহাটী ইউনিয়নের গাজিরঘাট গ্রামের বাদশা খান, সাইফুল তালুকদার, নিখিল ডাকুয়া একাধিক কৃষকরা বলেন, এ বছরে তাদের জমিতে আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে।

ইতোমধ্যে কিছু ধান ঘরে তুলতে পেরেছি। ৩ সপ্তাহ সময় পেলে সব ধান কর্তন করতে পারব। হঠাৎ বন্যার খবর পেয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছি। কয়েকদিন আগে বন্যায় ধান হেলে পড়ে অনেক ক্ষতি হয়েছে। আবারও যদি বন্যা হয়, বছরের খোরাক ঘরে তোলা যাবে না। গরুর গো-খাদ্যও সংকটে পড়বে।

এ বিষয়ে বলইবুনিয়া ইউনিয়ন উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা ও দৈবজ্ঞহাটী কৃষি কর্মকতা মিজানুর রহমান ও মশিউর রহমান বলেন, তাদের এলাকায় উচ্চ ফলনশীল জাতের ধান উৎপাদন করেছে বেশীরভাগ কৃষক। দেশী আমনের চাষ করেছে কম।

আরও পড়ুন: একদিনে আরও ৫ মৃত্যু, ভর্তি ৬৬৯

যে কারণে আগাম ধান কর্তন করতে পারছে তারা। ইতোমধ্যে কৃষকদেরকে বন্যার বার্তা দেওয়া হয়েছে। সামাজিক মাধ্যমেও এ বিষয়ে অবহিত করা হয়েছে।

এ সর্ম্পকে মোরেলগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আকাশ বৈরাগী বলেন, এ উপজেলায় কৃষকদেরকে ইউনিয়ন উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের মাধ্যমে আবহাওয়ার পূবার্ভাস বার্তা ও করণীয় সর্ম্পকে অবহিত করা হয়েছে। সেই সাথে ৮০ ভাগ পাকা ধান কর্তন করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

আগামী এক মাসের মধ্যে দেশী আমন ধান কর্তন করে তারা ঘরে তুলতে পারবে। উচ্চ ফলনশীল জাতের ধান বেশীরভাগ কেটে ফেলছেন কৃষকরা। এতে বন্যা হলেও তেমন ক্ষতির প্রভাব পড়বে না।

সান নিউজ/এনজে

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

অভিযোগ করেও প্রতিকার পাননি মেয়র প্রার্থী

মো. নাজির হোসেন, মুন্সীগঞ্জ: স্থা...

কি এমন দুঃখ ছিল সাংবাদিক অভিশ্রুতির?

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : সম্প্রতি গত ‍বৃহস্পতিবার (২৯ মার্চ)...

মনপুরায় চেয়ারম্যান পদে হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই 

ভোলা সংবাদদাতা: আগামী ৯ মার্চ অনু...

বিচ্ছেদে কাজে ফোকাস ছিল

বিনোদন ডেস্ক: অভিনেত্রী জয়া আহসান...

বিজিবিও হবে বিশ্বমানের স্মার্ট বাহিনী

নিজস্ব প্রতিবেদক : আমরা বর্ডার গার্ড বাংলাদেশকে বিশ্বমানের আ...

ছাত্রকে হত্যাচেষ্টায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা

জেলা প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের মেডিক...

মহাসড়ক অবরোধ করে শ্রমিকদের বিক্ষোভ

জেলা প্রতিনিধি: গাজীপুরের ঢাকা-ময়...

গাজার শিশুরা অপুষ্টির শিকার হচ্ছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গাজা ভূখণ্ডে অ...

খন্দকার মোশতাক আহমেদ’র প্রয়াণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজকের ঘটনা কাল...

টিভিতে আজকের খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক: প্রতিদিনের মতো আজ ‍মঙ্গলবার (৫ মার্চ) বে...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা