সারাদেশ

পরিক্ষার প্রবেশপত্র নিয়ে তালবাহানা

মো. নাজির হোসেন, মুন্সীগঞ্জ: কোচিংয়ের ফি পরিশোধ না করায় পরিক্ষার প্রবেশপত্র নিয়ে তালবাহনা করার অভিযোগ উঠেছে মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলার বেতকা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে। বাধ্য হয়ে অভিবাবকরা ধার-দেন করে অবৈধ কোচিংয়ের টাকা পরিশোধ করছেন।

আরও পড়ুন: ডেঙ্গুতে আরও ৪ জনের মৃত্যু

এর আগেও মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলার বেতকা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিতরে বিগত ৪ মাস যাবৎ প্রকাশ্যে কোচিং বানিজ্য করে আসছিল স্কুল কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়।

স্কুলের ৬ষ্ঠ হতে ১০ম শ্রেনী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন কৌশলে কোচিং করতে বাধ্য করছিল ওই স্কুলের শিক্ষকরা। সপ্তাহে ৩দিন করে দুই বিষয়ের উপর পড়িয়ে আদায় করা হচ্ছিল ৬ শত করে টাকা। কোচিং করানোর আগে অভিবাবকদের কাছ হতে নিয়ম অনুযায়ী সম্মতি নেওয়ার বিধান থাকলেও নেওয়া হয়নি কোন সম্মতি। এছাড়া অতিরিক্ত ক্লাস বাবদ প্রতি বিষয় পরিয়ে ১৫০টাকা করে অভিবাবকদের সম্মতিক্রমে নেওয়ার বিধান থাকলেও ওই বিদ্যালয়টি প্রতি বিষয়ের উপর ৩০০শত করে টাকা নিচ্ছিল।

পরে গত ২৮ নভেম্বর হতে ওই বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরিক্ষা শুরু হয় । কিন্তু গরীব অসহায় অনেক শিক্ষার্থী অবৈধ কোচিংয়ের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় তাদের দেওয়া হচ্চেনা পরিক্ষা হলের প্রবেশপত্র। এতে অভিবাবকদের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে।

শিক্ষার্থী সূত্রে জানাযায়, কোচিংয়ের ফি নিতে হলে রিসিড দিয়ে টাকা নেয়ার বিধান রয়েছে। আমাদের বিদ্যালয়ে এ নিয়ম মানা হয়নি। এখন শুনছি আমাদের কাছে কোচিং ফরম দেয়া হবে। তা পরিবার হতে সাক্ষর করে জমা দিতে হবে। এটা কেমন নিয়ম, নিয়ম ছিল কোচিং সম্মতি পত্রে আগে সাক্ষর করে পরে কোচিংয়ে নেয়া।

আরও পড়ুন: ৪৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

এ ব্যাপারে ওই বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী পিয়াঙ্কার মা স্বরস্বতী মন্ডল বলেন, আমার ৩ মেয়ে বিদ্যালয়ে পরে। তাদের বই খাতার খরচ যোগাইতেই আমাদের কষ্ট হয়। পরিক্ষার ফি দেওয়ার পরেও আমার মেয়ের প্রবেশ পত্র দেয় নাই। শিক্ষকরা বলে কোচিংয়ের টাকা না দিলে প্রবেশ পত্র দিবোনা। পরে আমি কোচিংয়ের টাকা ধারদেনা করে পরিশোধ করে স্কুল হতে প্রবেশ পত্র আনি।

বিদ্যালয়ের ৯ ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী অংকনের মা নাসিরন বেগম বলেন, বার্ষিক পরিক্ষার প্রবেশ পত্র আনার জন্য স্কুলে গেলে শিক্ষকরা বলছে কোচিংয়ের টাকা না দিলে প্রবেশ পত্র দিবো না। পরে বলে আমার মেয়ের এক মাসের কোচিংয়ের ৬ শত টাকা পায় । টাকা না দিলে প্রবেশ পত্র দিবো না পরে আমি কষ্ট করে ৬০০শত টাকার স্থলে ৫০০টাকা দিয়ে হাতে পায়ে ধরে প্রবেশ পত্র নেই।

৯ম শ্রেণীর অপর শিক্ষার্থী সুমাইয়ার মা রীণা বেগম বলেন, আমার স্বামী ডিম বিক্রি করে। মেয়ের স্কুল হতে এসে বলে স্যারেরা কোচিংয়ের টাকা পায় না দিলে পরিক্ষার প্রবেশ পত্র দিবো না । মেয়ে বলে কোচিংয়ের টাকা না দেওয়ায় স্যারের তাকে অপমান করছে। পরে আমি ২ হাজার টাকা ঋন করে কোচিংয়ের টাকা পরিশোধ করে প্রবেশ পত্র নিয়ে আসছি।

আরও পড়ুন: সার্বভৌমত্ব রক্ষায় প্রস্তুত থাকতে হবে

অপর অভিভাবক আরিফা বেগম বলেন, আমার দুই মেয়ে ৬ষ্ঠ ও ৮ম শ্রেনীতে পরে। তাদের স্কুলের স্যাররা দুইটা বিষয়ে পড়িয়ে মাসে ৬০০ করে টাকা নিচ্ছে। লোকজনকে তারা বলে তারা চার বিষয় পড়ায়। তারা মিথ্যা কথা বলছেন। যেমনে পারছেন টাকা আদায় করছেন। ওটা স্কুল নয়, একটা কসাইখানা।

এদিকে, বিদ্যালয়ের এক ছাত্রী জানান, মো. আরিফুর রহমান সবুজ স্যার ক্লাসে বলেছেন কোচিংয়ের টাকা পুরোপুরি পরিশোধ না করলে পরিক্ষার এডমিড কার্ড হবে না।

নবম শ্রেণীর এক ছাত্র বলেন, আমরা কোচিং করার সকল টাকা পরিশোধ করে তার পর প্রবেশ পত্র পেয়েছি। কারণ টাকা পরিশোধ না করলে ক্লাসে স্যাররা সবাইকে অপমান করেছে।

স্থাণীয়রা জানান, কিছুদিন আগে এসএসসি পরিক্ষা গেল। পেকটিক্যাল পরিক্ষা নাম্বার বাড়িয়ে দিবে বলে, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৫০০ টাকা করে নিলো স্যার । কেউ প্রতিবাদও করলো। কিন্তু কোন লাভ হলোনা।

আরও পড়ুন: কেন ১০ ডিসেম্বর

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক সেলিম হোসেন বলেন, আমরা ক্লাসে ওপেন ঘোষনা দিয়েছি তোমরা কোচিং করে যে পরিমান টাকা পারো দিও কেও না পারলে না দিও। কেউ ৬০০ টাকা দিছে কেউ ৩০০ টাকা দিছে, কেউ দেয় নাই। আমরা কাউকে টাকা পরিশোধের জন্য চাপ প্রয়োগ করি নাই। শুধুমাত্র শিক্ষার্ত্রীদের লেখাপড়ার মান ভালো হওয়ার জন্য কোচিং করিয়েছিলাম।

এ ব্যাপারে বেতকা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মহিউদ্দিন আল-মামুন বলেন, আমরা টাকার জন্য কোন শিক্ষার্থীর প্রবেশ পত্র আটকিয়ে রাখিনি। স্কুলের সকল শিক্ষার্থীই পরিক্ষা দিচ্ছে। কেউ টাকা পরিশোধ করেই দিছে কেউ আবার টাকা পরিশোধ না করেই দিচ্ছে।

আরও পড়ুন: চীনের পারমাণবিক অস্ত্র আরও বাড়বে

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা খালেদা পারভীন বলেন, যদি ওই স্কুলে কোন অনিয়ম হয়ে থাকে। তাহলে অভিবাবকরা আমার কাছে অভিযোগ করলে অবশ্যই আমি আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

সান নিউজ/এসআই

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

ডিজিটাল বাংলাদেশ আমরা গড়ে তুলেছি

সান নিউজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ডিজিটাল বাংল...

চলে যাচ্ছেন পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা

স্পোর্টস নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে (বিপিএলে) এবার...

ধলেশ্বরী নদী থেকে হাত-পা বিহীন মরদেহ উদ্ধার

মো. নাজির হোসেন, মুন্সীগঞ্জ : মুন...

২৭ ফেব্রুয়ারি আর্জেন্টিনা দূতাবাস উদ্বোধন

সান নিউজ ডেস্ক : আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী...

টিভিতে আজকের খেলা

সান নিউজ ডেস্ক: প্রতিদিনের মতো আজ সোমবার (৩০ জানুয়ারি) বেশ ক...

সিনেট নির্বাচন বর্জন করলেন ড. রব

সান নিউজ ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যা...

বৃহস্পতিবার পাতাল রেলের উদ্বোধন

সান নিউজ ডেস্ক : এবার দেশের প্রথম পাতাল মেট্রোরেলের নির্মাণ...

পেঁয়াজ কাটার সময় চোখ জ্বালার কারণ ও সমাধান

বিনোদন ডেস্ক : প্রতিদিনের রান্নায়...

দুই দিনের মেলা একদিনে শেষ, সমালোচনার ঝড়

কামরুজ্জামান স্বাধীন, উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প...

আ'লীগের ক্ষমতায় আসার সুযোগ নেই

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওব...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা