ভলোদিমির জেলেনস্কি
আন্তর্জাতিক

পুতিনের সাজা হওয়া উচিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, ইউক্রেনে হামলা চালানোর অপরাধে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের অবশ্যই শাস্তি হওয়া উচিত।

আরও পড়ুন: আরও ৯ হাসপাতালে ভর্তি

বুধবার রাতে নেদারল্যান্ডস সফরে যান তিনি। পরে হেগেতে অবস্থিত আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালতে (আইসিসি) বক্তব্য রাখতে গিয়ে এমন মন্তব্য করেন জেলেনস্কি।

জেলেনস্কি বলেন, আমরা সবাই এখানে (আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালত) ভিন্ন পুতিনকে দেখতে চাই। যিনি তার অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য সাজা পাওয়ার যোগ্য।

তিনি বলেন, আমি নিশ্চিত যে আমরা যখন জয়ী হবো তখন এমন কিছু অবশ্যই ঘটতে দেখবো। তিনি বলেন, যে বা যারা নিরপরাধ মানুষের ওপর যুদ্ধ চালাবে তাদের অবশ্যই বিচারের আওতায় আনতে হবে।

আরও পড়ুন: নারী শ্রমিকের মরদেহে আঘাতের চিহ্ন

এর আগে গত মার্চে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ওপর গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে আইসিসি। যুদ্ধ-সংঘাতের কারণে ইউক্রেনের হাজার হাজার শিশু নির্বাসিত হয়েছে। পুতিনের নির্দেশেই রুশ বাহিনী ইউক্রেনে হামলা চালিয়েছে। সে কারণেই তার ওপর গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

জেলেনস্কি অভিযোগ করেছেন, শুধু এপ্রিল মাসেই রাশিয়া প্রায় ৬ হাজার যুদ্ধাপরাধ করেছে। এর ফলে ১১ শিশুসহ ২০৭ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে।

এদিকে ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় খেরসন শহরে রাশিয়ার হামলায় কমপক্ষে ২৩ জন নিহত হয়েছে। আঞ্চলিক গভর্নর এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। স্থানীয় সময় বুধবার ওই শহরে গোলাবর্ষণ শুরু করে রাশিয়া।

আরও পড়ুন: মিয়ানমারের পথে রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদল

গভর্নর ওলেকসান্দর প্রোকুদিন অনলাইনে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে বলেন, আমরা যেখানে বসবাস করছি সেখানে টার্গেট করে শত্রুরা হামলা চালাচ্ছে। তিনি জানান, একটি বড় বাজার, একটি রেলওয়ে স্টেশন এবং বেশ কিছু আবাসিক ভবনে হামলা চালানো হয়েছে।

প্রোকুদিন বলেন, বিভিন্ন হামলায় ৪৬ জন আহত হয়েছে। খেরসনের আঞ্চলিক সামরিক প্রশাসনের মুখপাত্র ওলেকসান্দর টোলোকোনিকোভও হতাহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, খেরসনে রুশদের গ্রহণ না করার বদলা নিতেই রাশিয়া হামলা চালিয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে পূর্ব ইউক্রেনের রুশপন্থী বিদ্রোহী ও সরকারি বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। গত ২১ ফেব্রুয়ারি বিদ্রোহীদের দুই রাষ্ট্র ‘দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক’ ও ‘লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিক’কে স্বীকৃতি দিয়ে শান্তি রক্ষায় ওই অঞ্চলে সেনাবাহিনী পাঠায় রাশিয়া।

পরে ২৪ ফেব্রুয়ারি রুশপন্থী বিদ্রোহীদের সহায়তার লক্ষ্যে মস্কো স্থল, নৌ ও বিমান বাহিনীকে ইউক্রেনে পূর্ণমাত্রার অভিযানের নির্দেশ দেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তারপর থেকে এখন পর্যন্ত সংঘাত অব্যাহত রয়েছে। যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী নিত্য পণ্যের দাম বেড়ে যায় যা এখন পর্যন্ত অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার বিরুদ্ধে জার্মানিসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর থেকেই পাল্টে যেতে শুরু করে জার্মানিসহ পশ্চিমা দেশগুলোর অর্থনীতির চেহারা। নিষেধাজ্ঞার বিপরীতে রাশিয়া থেকে জ্বালানি, ভোজ্য তেল, গ্যাস ও কয়লাসহ খাদ্যশস্যের আমদানি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেড়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম। বিভিন্ন দেশে দেখা দিয়েছে মূল্যস্ফীতি।

সান নিউজ/এনকে

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

কোপার শিরোপা আর্জেন্টিনার

স্পোর্টস ডেস্ক : কোপা আমেরিকার ফাইনালে লাউতারো মার্টিনেজের গ...

শিক্ষার্থীদের আটকাতে ব্যারিকেড

নিজস্ব প্রতিবেদক: কোটা সংস্কারের ১ দফা দাবি আদায়...

টিভিতে আজকের খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক: প্রতিদিনের মতো আজ রোববার (১৪ জুলাই) বেশ কিছু...

বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন 

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চীনে ৩ দিনের সফর...

ক্যাম্পাসে ফিরেছেন শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকারি চাকরিতে...

বাফুফের জন্মদিন

নিজস্ব প্রতিবেদক: ১৯৭১ সালের (১৬...

২ বিভাগ- ১ জেলায় তাপপ্রবাহ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে দেশের ২ বিভ...

বহিরাগতদের জন্যই পুলিশ মোতায়েন

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিশ্ববিদ্য...

ঢাবিতে রাতেও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ সারা দিনভর দ...

অনুরোধ প্রত্যাখ্যান শিক্ষার্থীদে

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীর...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা