ফিচার

জনবল সঙ্কটে খুঁড়িয়ে চলছে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা

আমিরুল হক, নীলফামারী: জনবল সঙ্কটে খঁড়িয়ে চলছে দেশের অন্যতম সর্ববৃহৎ নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা। দিনদিন দক্ষ শ্রমিক অবসরে যাওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তায় পড়েছে। অত্যাধুনিক মেশিনপত্র স্থাপন করা হলেও কাঙ্খিত উৎপাদন সম্ভব হচ্ছে না।

এছাড়া অনেক যন্ত্র নষ্ট হয়ে পড়ে থাকলেও মেরামতের কোন উদ্যোগ নেই। দ্রুত নতুন করে শ্রমিক নিয়োগ না হলে অচল হয়ে পড়বে শত বছরের পুরনো প্রতিষ্ঠানটি। শহর গঠিত হওয়ার আগে সৈয়দপুর সেই সময়ের অন্যতম বাণিজ্যিক কেন্দ্র ছিল। এখানে রেলওয়ে ওয়ার্কশপকে কেন্দ্র করেই ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার ঘটতে থাকে এবং সৈয়দপুর শহরের গোড়াপত্তনও এই রেলওয়ে কারখানাকে ঘিরে।

কারখানাটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৭০ সালে। যা বর্তমান বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ রেলওয়ে কারখানা। ঐতিহাসিক এই কারখানাটি প্রায় ১০০ একর জায়গার উপর প্রতিষ্ঠিত হয়। তখন এখানে ১৯৩০ সালে কারখানার পাশাপাশি একটি রেলওয়ে স্টেশন ও প্রতিষ্ঠা করা হয়। ধীরে ধীরে শহরটি রেলওয়ে শহর হিসেবে পরিচিতি পায় এবং জনপ্রিয়তা অর্জন করে। পরিবহনের ক্ষেত্রে সৈয়দপুর বৃহত্তর রংপুর, দিনাজপুরসহ ৮টি জেলার ব্যবসায়িক করিডোর হিসেবে পরিচিত।

কারখানা সুত্রে জানা যায়, ২০০৯ সালে সরকার ১৫৩ কোটি টাকা ব্যয়ে কারখানাটি আধুনিকায়নের প্রকল্প হাতে নেয়। প্রকল্পের আওতায় ব্রডগেজ ও মিটারগেজ যাত্রীবাহী বগি এবং ওয়াগন মেরামত করা হয়। ৪৩ ধরনের মেকানিক্যাল ও ১৩ ধরনের ইলেকট্রিক্যাল প্লান্টস অ্যান্ড মেশিনারিজ প্রতিস্থাপন করা হয়।

এছাড়া ডিপটিউবওয়েল স্থাপনসহ একটি ওভারহেড পানির ট্যাংক নির্মাণ করা হয়। কিন্তু দক্ষ জনবলের সঙ্কটে আধুনিকায়নের কোনো সুফলই মিলছে না। কারখানাটিতে বর্তমানে কর্মকর্তা ও শ্রমিক-কর্মচারীর ২ হাজার ৮৩৩টি পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন মাত্র ৭০০ জন। বিদ্যুৎ বিভাগে ৪১৩ জনের বিপরীতে কর্মরত ১৪৯ জন।

এ কারণে বর্তমানে কারখানায় ক্যারেজ মেরামতের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হচ্ছে না। প্রতিদিন তিন ইউনিট ক্যারেজ মেরামতের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও হচ্ছে দুটি ইউনিট। এক সময় এ কারখানায় ক্যারেজ, ওয়াগন ও লোকোমোটিভের ১ হাজার ২০০ ধরনের খুচরা যন্ত্রাংশ তৈরি হলেও বর্তমানে তা ক্রয় নির্ভর হয়ে পড়েছে।

অন্যদিকে, বেশির ভাগ সময়ই মালামাল কেনার দরপত্রে জটিলতা ও দীর্ঘসূত্রতা হয়। ফলে বগি ও ওয়াগন মেরামতের প্রয়োজনীয় কাঁচামালের জোগান সময় মতো আসে না। অনেক সময় নিন্মমানের মালামালও চলে আসে। সেগুলো ঠিকঠাক করতে গিয়ে অতিরিক্ত জনবল, কর্মঘণ্টা ও বিদ্যুতের অপচয় হয়।

জানতে চাইলে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (ডিএস) জয়দুল ইসলাম বলেন, বর্তমান শ্রমিক-কর্মচারীদের আন্তরিকতার কারণে জনবল সংকট সত্ত্বেও প্রতিদিন দুই ইউনিট ক্যারেজ মেরামত করা হচ্ছে। তবে দ্রুত প্রয়োজনীয় সংখ্যক জনবল নিয়োগ দেওয়া হলে উপকৃত হবে কারখানাটি।

সান নিউজ/এমকেএইচ

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

দীর্ঘদিন পর প্রকাশ্য এলেন ডা. মুরাদ হাসান 

শওকত জামান, জামালপুর: নানা বিতর্ক...

ব্যক্তিমালিকানা জমিতে আশ্রয়ণের ঘর নির্মাণের অভিযোগ

কামরুজ্জামান স্বাধীন, উলিপুর (কুড়িগ্রাম):...

রাজধানীর নতুনবাজারে ফার্নিচারের শো রুমে আগুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর নতুনবাজারে একটি ৬ তলা ভবনের ৫ তলা...

পঞ্চগড়ে এসআইয়ের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা

মোঃ রাশেদুজ্জামান রাশেদ: পঞ্চগড়ে...

যুক্তরাষ্ট্রই বিশ্বের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বেইজিংয়ের দাবি, যুক্তরাষ্ট্রের হাতে রয়েছ...

সেই ভাইস চেয়ারম্যানকে আ’লীগ থেকে বহিষ্কার

নিজস্ব প্রতিনিধি, দুপচাঁচিয়া (বগুড়া): সরকারি চাকুরির নিয়োগ প...

শাবি ভিসির বাসভবনের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ব...

রংপুরে বাসচাপায় অটোরিকশার ৪ যাত্রী নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর: রংপুরে একটি যাত্রীবাহী বাসের চাপায়...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা