বিশেষ সংবাদ

বিশেষ সংবাদ

জাতীয়

দেশেই তৈরি হচ্ছে বিশ্বমানের মেডিক্যাল সরঞ্জাম সামগ্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : এখন দেশেই উৎপাদন হচ্ছে নানা চিকিৎসা সরঞ্জাম। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে চাহিদা মিটিয়ে রফতানি সম্ভব বলছেন উদ্যোক্তারা।

আমদানি নির্ভরতা কমাতে এখন দেশেই উৎপাদন হচ্ছে চিকিৎসা সরঞ্জাম। তৈরি হচ্ছে রক্তের নমুনা সংরক্ষণের টিউব, ব্লাড ট্রান্সফিউশন সেটসহ বিভিন্ন ধরণের সিরিঞ্জ। উৎপাদকরা বলছেন এতে দাম কমবে চিকিৎসা সরঞ্জামের। সাশ্রয় হবে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা। উদ্যোক্তারা বলছেন, সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে, দেশের চাহিদা মিটিয়ে অচিরেই বিদেশে রফতানি করা সম্ভব এসব মেডিক্যাল সরঞ্জাম।

পরীক্ষার জন্য রক্তের নমুনা সংরক্ষণ করা হয় ভ্যাকুয়াম ব্লাড কালেকশন টিউবে। কিন্তু এর পুরোটাই এখন আমদানি করতে হয়। প্রতিবছর প্রায় দুইশো কোটি টাকার টিউব আসছে বাংলাদেশে।

আশার কথা হলো, রক্ত সংরক্ষণের এই টিউব এখন দেশেই উৎপাদন শুরু করেছে চিকিৎসা সরঞ্জাম প্রস্তুত ও আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান- এএনসি। দেশের চাহিদা মিটিয়ে ভ্যাকুয়াম ব্লাড কালেকশন টিউব রফতানিও করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি।

এএনসি'র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. চৌধুরী হাসান মাহমুদ বলেন, এখন আমরা যে প্রোডাক্টগুলি বাইরে থেকে এনে ব্যবহার করছি, অনেক সময় দেখা যায় সেখানে নিম্ন মানের পণ্য দেয়া হয়। আমরা আসার পরে চিকিৎসা সরঞ্জামের বেশিরভাগ পণ্যই স্বয়ংসম্পুর্ন হয়ে যাবো।

শুধু এই টিউব নয়, এএনসি জার্মানি, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন ও ভারতের প্রযুক্তিগত সহযোগিতা নিয়ে বিভিন্ন ধরণের সিরিঞ্জ, ইনফিউশন সেট, অ্যালকোহল প্যাড, ফার্স্ট এইড ব্যান্ড, আইভি ক্যানোলা, ব্লাড ট্রান্সফিউশন সেট এবং স্পাইনাল নিডল তৈরি করছে।

এএনসি'র নির্বাহী পরিচালক (উৎপাদন) মোহাম্মদ মোস্তফা জামান বলেন, আমাদের যে আইওসো-১৩৪৮৫ এবং সি মার্কিং গাইডলাইন আছে সেই অনুযায়ি আমরা প্রোডাক্ট তৈরি করি। এছাড়া এখানে আমরা ডি অ্যানভারেনমেন্ট আমরা মেনে চলি।

এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠানটি ২২ ধরনের চিকিৎসা সরঞ্জাম উৎপাদনের জন্য ওষুধ প্রশাসনের অনুমোদন পেয়েছে। যার মধ্যে ৫টি সরঞ্জাম বাজারে এসেছে।

এএনসি'র জেনারেল ম্যানেজার (উৎপাদন) ড. বিজয় কুমার শর্মা বলেন, খুবই চমৎকার একটি কারখানা। এখানে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে আন্তর্জাতিক মানের চিকিৎসা সরঞ্জাম তৈরি করা হচ্ছে। সব ধরণের নিরাপদ-নিরাপত্তা মেনেই আমরা এসব চিকিৎসা সরঞ্জাম তৈরি করছি।

রফতানি বাজারে ওষুধ শিল্পে বাংলাদেশ এগিয়ে থাকলেও চিকিৎসা সরঞ্জাম তৈরি করছে মাত্র চারটি প্রতিষ্ঠান। যাতে পূরণ হচ্ছে দেশের মোট চাহিদার মাত্র ১০ শতাংশ।

তবে বাংলাদেশে এই খাতে আশার আলো দেখছেন ভারতীয় বিশেষজ্ঞরা। ভারতের সাবেক ডেপুটি ড্রাগস কন্ট্রোলার মলয় কুমার মিত্র বলেন, আমারতো মনে হয় এটা শুধু বাংলাদেশ না এটি দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে অন্যতম একটি কারখানা করা হয়েছে। এখানে এরা যেসব আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করছে এবং যে প্রক্রিয়ায় উৎপাদন করছে এটি নিঃসন্দেহে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

ওষুধ শিল্পের সাফল্যের সিড়ি বেয়ে এগিয়ে চলেছে মেডিক্যাল সরঞ্জাম খাতটিও। ১৫ হাজার কোটি টাকার এ বাজারে এবার পা ফেলেছেন দেশিয় উদ্যোগতারা। আশা করা হচ্ছে, এতে কমবে আমদানী নির্ভরতা। সাশ্রয় হবে বিপুল বৈদেশিক মুদ্রা। তাই খাতটির দিকে সরকারের বাড়তি নজরের দাবি উদ্যোগতাদের।

সান নিউজ/এসএম

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

‘ঈদের আগে লকডাউন শিথিলের চিন্তাভাবনা’

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশেষজ্ঞদের পর...

আজ খুলছে বীমা কোম্পানির অফিস

নিজস্ব প্রতিবেদক : সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ জনবল নিয়ে আজ থেকে চালু...

যুবকের সঙ্গে ধস্তাধস্তি, সেই পুলিশ কর্মকর্তা ক্লোজড

নিজস্ব প্রতিনিধি, ফেনী : ফেনীতে রিকশা থেকে যুবককে শার্টের কল...

চুল কাটার অনুভূতি!

আসমাউল মুত্তাকিন: আমার স্পষ্ট মনে আছে, তখন আমি প্রথম শ্রেণিত...

প্রধানমন্ত্রীর কাছে জাফরুল্লাহর খোলা চিঠি

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকায় গণস্বাস...

করোনা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সুখবর দিলেন ডব্লিউএইচও প্রধান

সান নিউজ ডেস্ক : আগামী কয়েক মাসের মধ্যে করোনা মহামারিকে নিয়ন...

আলেম-ওলামা দেখে গ্রেফতার করা হয়নি : কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : কোনো দল বা আ...

দুরারোগ্য ব্যধিতে ভাওয়াইয়া শিল্পী পরেশ 

নিজস্ব প্রতিনিধি, উলিপুর (কুড়িগ্রাম) :

‘নাজুক চিকিৎসা ব্যবস্থায় মানুষ অসহায় হয়ে পড়েছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় পার্টির...

‘বিএনপি-জামায়াত-হেফাজত মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ’

নিজস্ব প্রতিবেদক : জামায়াত, বিএনপি ও হেফাজত ইসলাম একই মুদ্রা...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা