শিক্ষা

অপ্রতিরোধ্য হাফিজুর মুখ দিয়ে লিখেই স্নাতকোত্তর ডিগ্রি

স্বপ্ন মানুষকে নিয়ে যায় অনেক দূর। আর স্বপ্নের হাতছানি যদি তীব্র হয় তবে কোন বাঁধাই যেন মানুষকে আটকাতে পারে না । সেই স্বপ্নবান মানুষের দলের একজন হাফিজুর রহমান। যিনি জন্ম থেকে শারীরিক ভাবে প্রতিবন্ধি।

তার এই শারীরিক প্রতিবন্ধকতায় মানসিক শক্তি যেন তার জীবনে আলোর দ্বার খুলে দিল। প্রচেষ্টা আর দৃঢ় মনোবলই এই পথচলার চাবিকাঠি।

জন্ম থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধকতা বাধা হয়ে দাঁড়ালেও শিক্ষার আলোয় সেই প্রতিবন্ধকতাকে জয় করেছেন তিনি। গত ১১ জানুয়ারি হাফিজুর যোগ দিয়েছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) প্রথম সমাবর্তনে।

সংগ্রামী ‘হাফিজুরের জন্ম বগুড়ার ধুনটের বেলকুচি গ্রামে। তার বাবা মফিজউদ্দিন,মা ফিরোজা বেগম। মাতৃগর্ভ থেকেই তার দু’হাত অচল। আর পা দুটি খর্বকায় । হাঁটাচলা না করতে পারলেও পা দিয়েই লিখা শুরু করেন তিনি। '

প্রতিবন্ধী হাফিজুর এর পড়াশুনা প্রথমে বাসায় শুরু হয়। কৈশোরে এসে তার পড়াশুনার প্রতি আগ্রহ বাড়ে। তিনি তার বাবার কাছেই বাংলা-ইংরেজি বর্ণমালা শিখেন। তার বাবা পড়ালেখার প্রতি ছেলের আগ্রহ দেখে স্থানীয় ব্রাক স্কুলে র্ভতি করিয়ে দেন । কিন্তু শারীরিকি প্রতিবন্ধকতার কারনে তার একার পক্ষে স্কুলে যাওয়া- আসা সম্ভব ছিল না। তাই উপায়ন্তর না দেখে তার বাবা তাকে সাইকেলের বিয়ারিং দিয়ে একটি ছোট্র গাড়ি বানিয়ে দেন। সেটিতে রশি বেঁধে দেন এবং সহপাঠীরা তাকে সেই রশি টেনে স্কুলে আনা-নেয়া করতো।

স্কুলে আসা-যাওয়ার এই কষ্ট দেখে শিক্ষকরা তাকে বাড়িতে লেখাপড়া করার পরামর্শ দেন। শিক্ষকদের কথায় এবং তাদের সহযোগিতায় তিনি বাড়িতে পড়ালেখা শুরু করেন। তবে মাঝে মাঝে স্কুলে যেতেন। এভাবে প্রাথমিক বিদ্যালয় শেষ করে ভর্তি হন ধুনট এন.ইউ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে। সেখানেও পেলেন অপরিসীম সহযোগিতা, স্কুলের শিক্ষকরা পরামর্শ দিলেন বাড়িতে থেকে লেখাপড়ার করার। শুধু পরীক্ষার সময় স্কুলে যেতেন হাফিজুর।

এভাবেই সংগ্রাম,একাগ্রতা এবং চেষ্টার মধ্য দিয়ে তিনি তার পড়ালেখা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। অষ্টম শ্রেণীতে পড়ার সময় তার মাথায় নতুন একটি চিন্তা আসে। তিনি পা দিয়ে লিখার বদলে মুখ দিয়ে কলম ধরে লিখতে চেষ্টা করেন এবং সফলও হন।

এরপর মুখ দিয়ে কলম ধরে লিখেই ২০০৯ এসএসসিতে জিপিএ ৪.১৯ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। তারপর ভর্তি হন ধুনট ডিগ্রি কলেজে। সেখান থেকে ২০১১ সালে এইচএসসিতে জিপিএ ৩.৬০ পেয়ে উত্তীর্ণ হন হাফিজুর।

উচ্চ মাধ্যামিক শেষ করে উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন নিয়ে ঢাকায় চলে আসেন হাফিজুর। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার সুযোগ পান তিনি। ভর্তি হন ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে। এ সময় তাকে সার্বক্ষণিক দেখাশোনা করেন তারই ভাতিজা একাদশ শ্রেণির ছাত্র মোহাম্মদ ইব্রাহিম। হুইল চেয়ার ঠেলে ইব্রাহিম তাকে ক্লাসে আনা নেওয়া করেন। ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক এবং ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি সম্পন্ন করেন হাফিজুর। আর জবির প্রথম সমাবর্তনে অংশগ্রহন করে গবির্তন হাফিজুরের মুখে এখন বিজয়ের হাসি।

স্বপ্ন যে মানুষকে অনেক দূর নিয়ে যায়,হাফিজুরেই তার প্রকৃষ্ঠ উদাহরন। এত প্রতিবন্ধকতা থাকা সত্ত্বেও তিনি চেষ্টা করে গেছেন তার লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য,এবং সফলও হয়েছেন। হাজার হাজার মানুষের অনুপ্রেরণার গল্প হয়ে আছেন হাফিজুরের সংগ্রামী জীবনের এ গল্প।

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

নবরূপে ভালুকার গ্রীণ অরণ্য পার্ক

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: অবক...

ইছামতীর তীরে সাধুসঙ্গ

মো. নাজির হোসেন, মুন্সীগঞ্জ: মুন্...

বিয়ে করছেন তাপসী পান্নু

বিনোদন ডেস্ক: বলিউড পাড়ায় বিয়ের স...

লক্ষ্মীপুরে আগুনে ১১ দোকান পুড়ে ছাই

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরে...

মাদক খেলে পুলিশের চাকরি থাকবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুলিশের মহাপরিদ...

বৃহস্পতিবার রাজধানীর যেসব মার্কেট বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রতি সপ্তাহের একেক দিন বন্ধ থাকে রাজধানীর...

পণ্যের মূল্য নিয়ে গুজবে কান দেবেন না

নিজস্ব প্রতিবেদক: নিত্যপণ্যের দাম...

ভিকারুননিসার ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল 

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি বছরের জানু...

অঙ্কিতাকে সন্তান নিতে বললেন ভাইজান

বিনোদন ডেস্ক: গত অক্টোবরে শুরু হও...

কোন রঙের আঙুর বেশি স্বাস্থ্যকর?

লাইফস্টাইল ডেস্ক: আঙুর ভীষণ সুস্ব...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা