ছবি: সংগৃহীত
জাতীয়

বাংলাদেশের বিগত বাজেটসমূহ

নিজস্ব প্রতিবেদক : স্বাধীনতার পর ১৯৭১ সালে মাত্র ৪৯৮৫ কোটি টাকার অর্থনীতি নিয়ে যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশ। পরের বছর ১৯৭২ সালে প্রথম ১৯৭২-৭৩ অর্থ বছরের জন্য ৭৮৬ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়।

আরও পড়ুন : উলিপুরে অবাধে বালু উত্তোলনের অভিযোগ

উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় আজ স্বাধীনতার ৫২ বছরের ব্যবধানে ৯৬৯ গুণ বড় বাজেট নিয়ে জাতীয় সংসদে ২০২৩-২৪ অর্থ বছরের বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করবেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

টানা তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসা আওয়ামী লীগ সরকার ও অর্থমন্ত্রী হিসেবে মুস্তফা কামালের পঞ্চম বাজেট উপস্থাপন এটি।

আরও পড়ুন : বিদেশ যেতে পারবেন সম্রাট

বৃহস্পতিবার (১ জুন) জাতীয় সংসদে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে এবারের বাজেট উপস্থাপন করবেন অর্থমন্ত্রী।

তার আগে মন্ত্রিসভার অনুমোদন হবে। পরে ঐ প্রস্তাবে সই করবেন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন। আগামী ১ জুলাই থেকে নতুন অর্থ বছর শুরু হবে।

এবার অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তব্যের প্রতিপাদ্য ধরা হচ্ছে ‘উন্নয়নের দেড় দশক : স্মার্ট বাংলাদেশের অভিমুখে।’

আরও পড়ুন : দুর্নীতির দায়ে অধ্যক্ষ ওএসডি

অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশের প্রথম বাজেটের আকার ছিল ৭৮৬ কোটি টাকা। ১৯৭২ সালে (১৯৭২-৭৩) অর্থ বছরে ঐ বাজেট দিয়েছিলেন বাংলাদেশের প্রথম অর্থমন্ত্রী তাজউদ্দীন।পরের ২ টি বাজেটও তিনি দিয়েছিলেন।

স্বাধীনতার ৫২ বছর পর অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে বাংলাদেশের ৫২ তম যে বাজেট দেবেন, তার আকার ধরা হচ্ছে ৭ লাখ ৬১ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন : দেশের ৫২তম বাজেট ঘোষণা আজ

এ হিসাবে স্বাধীনতার পর প্রথম বাজেটের চেয়ে আসন্ন নতুন বাজেটের আকার বাড়ে দাঁড়াবে ৯৬৯.১৯ গুণ বেশি।

এবার টানা পঞ্চমবারের মতো বাজেট দেবেন আ হ ম মুস্তফা কামাল। এর আগে টানা ১০ বার বাজেট দিয়ে রেকর্ড করছিলেন প্রয়াত অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তার আগে বাংলাদেশে প্রয়াত অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া টানা ৬ টি বাজেট দিয়েছেন।

তবে আবদুল মুহিত টানা ১০ বাজেট ছাড়াও এরশাদ সরকারের সময় (১৯৮২-৮৩ এবং ১৯৮৩-৮৪ অর্থবছর) ২ টি বাজেট দিয়েছিলেন। এ হিসেবে মুহিতের স্থাপনকারী বাজেটের সংখ্যা ১২ টি। এছাড়া প্রয়াত অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানেরও ১২ টি বাজেট দেওয়ার রেকর্ড রয়েছে।

আরও পড়ুন : নামিবিয়ায় পোরিজ খেয়ে ১৩ জনের মৃত্যু

স্বাধীনতার পর বাজেট এবং অর্থমন্ত্রীর তালিকা :

১৯৭২-৭৩ অর্থ বছর, তাজউদ্দীন আহমদ ৭৮৬ কোটি টাকা।

১৯৭৩-৭৪ অর্থ বছর, তাজউদ্দীন আহমদ ৯৯৫ কোটি টাকা।

১৯৭৪-৭৫ অর্থবছর, তাজউদ্দীন আহমদ ১০৮৪.৩৭ কোটি টাকা।

১৯৭৫-৭৬ অর্থ বছর, ড. আজিজুর রহমান ১৫৪৯.১৯ কোটি টাকা।

১৯৭৬-৭৭ অর্থ বছর, মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান ১৯৮৯.৮৭ কোটি টাকা।

১৯৭৭-৭৮ অর্থ বছর, লে. জেনারেল জিয়াউর রহমান ২১৮৪ কোটি টাকা।

১৯৭৮-৭৯ অর্থ বছর, রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ২৪৯৯ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন : প্রধানমন্ত্রীকে এরদোয়ানের ফোন

১৯৭৯-৮০ অর্থ বছর, ড. এম এন হুদা ৩৩১৭ কোটি টাকা।

১৯৮০-৮১ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ৪১০৮ কোটি টাকা।

১৯৮১-৮২ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ৪৬৭৭ কোটি টাকা।

১৯৮২-৮৩ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত ৪৭৩৮ কোটি টাকা।

১৯৮৩-৮৪ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত ৫৮৯৬ কোটি টাকা।

১৯৮৪-৮৫ অর্থ বছর, এম সাইদুজ্জামান ৬৬৯৯ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন : ফেনীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

১৯৮৫-৮৬ অর্থ বছর, এম সাইদুজ্জামান ৭১৩৮ কোটি টাকা।

১৯৮৬-৮৭ অর্থ বছর, এম সাইদুজ্জামান ৮৫০৪ কোটি টাকা।

১৯৮৭-৮৮ অর্থ বছর, এম সাইদুজ্জামান ৮৫২৭ কোটি টাকা।

১৯৮৮-৮৯ অর্থ বছর, মেজর জেনারেল (অব.) মুনিম ১০৫৬৫ কোটি টাকা।

১৯৮৯-৯০ অর্থ বছর, ড. ওয়াহিদুল হক ১২৭০৩ কোটি টাকা।

১৯৯০-৯১ অর্থ বছর, মেজর জেনারেল (অব.) মুনিম ১২৯৬০ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন : জাতিসংঘের এজেন্ডায় একাত্তরের গণহত্যা

১৯৯১-৯২ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ১৫৫৮৪ কোটি টাকা।

১৯৯২-৯৩ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ১৭৬০৭ কোটি টাকা।

১৯৯৩-৯৪ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ১৯০৫০ কোটি টাকা।

১৯৯৪-৯৫ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ২০৯৪৮ কোটি টাকা।

১৯৯৫-৯৬ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ২৩১৭০ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন : কানাডায় দাবানল নিয়ন্ত্রণের বাইরে

১৯৯৬-৯৭ অর্থ বছর, এসএএমএস কিবরিয়া ২৪৬০৩ কোটি টাকা।

১৯৯৭-৯৮ অর্থ বছর, এসএএমএস কিবরিয়া ২৭৭৮৬ কোটি টাকা।

১৯৯৮-৯৯ অর্থ বছর, এসএএমএস কিবরিয়া ২৯৫৩৭ কোটি টাকা।

১৯৯৯-০০ অর্থ বছর, এসএএমএস কিবরিয়া ৩৪২৫২ কোটি টাকা।

২০০০-০১ অর্থ বছর, এসএএমএস কিবরিয়া ৩৮৫২৪ কোটি টাকা।

২০০১-০২ অর্থ বছর, এসএএমএস কিবরিয়া ৪২৩০৬ কোটি টাকা।

২০০২-০৩ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ৪৪৮৫৪ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন : জিএমপি কমিশনার হলেন মাহবুব আলম

২০০৩-০৪ অর্থবছর, এম সাইফুর রহমান ৫১৯৮০ কোটি টাকা।

২০০৪-০৫ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ৫৭২৪৮ কোটি টাকা।

২০০৫-০৬ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ৬১০৫৮ কোটি টাকা।

২০০৬-০৭ অর্থ বছর, এম সাইফুর রহমান ৬৯৭৪০ কোটি টাকা।

২০০৭-০৮ অর্থ বছর, এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম ৯৯৯৬২ কোটি টাকা।

২০০৮-০৯ অর্থ বছর, এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম ৯৯৯৬২ কোটি টাকা।

২০০৯-১০ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত ১১৩,৮১৫ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন : ভারত-চীন বৈঠক অনুষ্ঠিত

২০১০-১১ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত ১৩২,১৭০ কোটি টাকা।

২০১১-১২ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত ১৬৫,০০০ কোটি টাকা।

২০১২-১৩ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত ১৯১,৭৩৮ কোটি টাকা।

২০১৩-১৪ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত ২ লাখ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা।

২০১৪-১৫ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত ২ লাখ ৫০ হাজার ৫০৬ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন : ঢাকাসহ ৪ বিভাগে বৃষ্টির পূর্বাভাস

২০১৫-১৬ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত ২ লাখ ৯৫ হাজার ১০০ কোটি টাকা।

২০১৬-১৭ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত, ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা।

২০১৭-১৮ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত, ৪ লাখ ২৭০ কোটি টাকা।

২০১৮-১৯ অর্থ বছর, আবুল মাল আবদুল মুহিত, ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা।

২০১৯-২০ অর্থ বছর, আ হ ম মুস্তফা কামাল, ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা।

২০২০-২১ অর্থ বছর, আ হ ম মুস্তফা কামাল, ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকা।

২০২১-২২ অর্থ বছর, আ হ ম মুস্তফা কামাল, ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন : পঞ্চগড়ে রিকশা পেলেন ৪০ জন

২০২২-২৩ অর্থ বছর, আ হ ম মুস্তফা কামাল, ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকা।

২০২৩-২৪ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটের আকার ধরা হয়েছে ৭ লাখ ৬১ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা।

বিশাল বড় এ বাজেটের ঘাটতি ধরা হচ্ছে ২ লাখ ৫৭ হাজার ৮৮৫ কোটি টাকা। অনুদান ছাড়া ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়াবে ২ লাখ ৬১ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা, যা মোট জিডিপির ৫.২ শতাংশ।

এবার বাজেটের আয়-ব্যয়ের বিশাল ঘাটতি পূরণে প্রধান ভরসাস্থল হিসাবে ব্যাংক খাত বেছে নিয়েছে সরকার। ফলে ঘাটতি পূরণে ব্যাংক খাত থেকে ১ লাখ লাখ ৩২ হাজার ৩৯৫ কোটি টাকা নেওয়ার পরিকল্পনা নিচ্ছে সরকার।

আরও পড়ুন : কানাডায় দাবানল নিয়ন্ত্রণের বাইরে

আসন্ন বাজেটে মোট রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪ লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) লক্ষ্য মাত্রা হচ্ছে ৪ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা। কর বহির্ভূত ও অন্যান্য আয়ের লক্ষ্য মাত্রা হচ্ছে ২০ হাজার কোটি টাকা।

কর ছাড়া প্রাপ্তি ধরা হয়েছে ৫০ হাজার কোটি টাকা। আর বৈদেশিক অনুদান থেকে সংগ্রহের লক্ষ্য মাত্রা রাখা হয়েছে ৩ হাজার ৯০০ কোটি টাকা।

চলতি ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের বাজেটের আকার ছিল ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকা। যদিও সংশোধিত বাজেটের এই আকার কমে বর্তমানে দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ৬০ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা।

সান নিউজ/এনজে

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

ভোলায় রিমালে ক্ষতিগ্রস্তদের খাদ্য বিতরণ

ভোলা প্রতিনিধি : ভোলায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ব...

বিয়ে করলেন চমক

বিনোদন ডেস্ক : ছোট পর্দার অভিনেত্রী রুকাইয়া জাহান চমক। কোনো...

বিজিবির অভিযানে ভারতীয় মদ জব্দ

আবু রাসেল সুমন, খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি : সীমান্তে সুরক্ষায় নিয়...

জায়েদের সাথে অভিনয় করতে চায় টয়া

বিনোদন ডেস্ক: বর্তমানে ছোটপর্দার...

ইসলামী ব্যাংকের ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম সম্পন্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক : ইসলামী ব্যাংক ট্রেনিং অ্যান্ড রিসার্চ একা...

কাঁচা চামড়া আমদানির আগ্রহ মিশরের

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের থেকে কাঁচ...

রাষ্ট্রপতি ও নতুন সেনা প্রধানের সাক্ষাৎ 

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাষ্ট্রপতি মো....

আমের ক্যারেটে ফেনসিডিল

জেলা প্রতিনিধি: সাভারের আশুলিয়ায়...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা