বিশেষ সংবাদ

বিশেষ সংবাদ

জাতীয়
করোনাভাইরাস

দুশ্চিন্তায় নিম্ন আয়ের মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক:

কর্মব্যস্ত নগরী রাজধানী ঢাকা একেবারেই অপরিচিত হয়ে পড়েছে। নেই কোন যানজট। কর্মচঞ্চলহীন নগরী। প্রয়োজন ছাড়া বের হচ্ছে না কেউ। ফুটপাথে নেই চা, ফুচকা কিংবা মুড়ি বিক্রেতারা। উপার্জনহীন এই সময়ে কেমন কাটছে নিম্ন আয়ের এই মানুষগুলোর জীবন।

মোহাম্মদপুর, বসিলা ও কামরাঙ্গীচর এলাকায় ঘর ভাড়া নিয়ে থাকেন অনেক নিম্ন আয়ের মানুষ। এদের কেউ রিকশা চালায়, কেউ চা, মুড়ি কিংবা ফুচকা বিক্রেতা।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সবাইকে ঘরে থাকতে হবে, সরকারের এমন নির্দেশনার পর তারা আর বের হচ্ছেন না বাসা থেকে। বন্ধ রয়েছে তাদের বেচা-কেনা। দিন আনা দিন খাওয়া এই মানুষগুলো পড়েছে চরম বিপাকে।

এদেরই একজন কামরাঙ্গীচরের ঝাল মুড়ি বিক্রেতা রফিক। ঝাল মুড়ি বিক্রি করে যা আয় হতো তা দিয়ে ভালভাবেই সংসার চলছিলো। হঠাৎ বাঁধা হয়ে দাঁড়ালো করোনাভাইরাস। করোনা সংক্রমণ রোধে তাদের বেচাকেনা বন্ধ। রফিক বলেন. ঝালমুড়ি বিক্রি করে কতই বা আয় হয়। জমানো যা টাকা ছিলো তা দিয়ে আজ পর্যন্ত চলবে। কাল কিভাবে চলবে বুঝতে পারছি না। পেটের দায়ে দুশ্চিন্তায় আছি।

আরেক ঝাল মুড়ি বিক্রেতা শহীদুল বলেন, রুজি-রোজগার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চিন্তায় আছি। দিন কিভাবে চলবে। ঘরে পাঁচ কেজি চাল কেনা আছে। এটা দিয়ে চলে যাবে এক সপ্তাহ। এর পর কিভাবে চলবো। ভেবে কুলকিনারা পাচ্ছি না।

সেখানেই পাশের ঘরে থাকেন জালাল নামের এক ফুচকা বিক্রেতা। তিনি বলেন, ফুচকা বিক্রি করে যা আয় করি তা ঘর ভাড়া, সংসার আর তিন ছেলে-মেয়েকে খেলাপড়া করাতে খরচ হয়ে যায়। বাড়তি কোন আয় থাকে না। একদিন ফুচকা বিক্রি বন্ধ হয়ে যাওয়া মানে খাওয়া-দাওয়া বন্ধ। কতদিন এই অবস্থা থাকবে জানি না। স্ত্রী-ছেলে-মেয়ে নিয়ে পাঁচ জনের সংসার কিভাবে চলবে বুঝতে পারছি না। একজনের কাছ থেকে কিছু টাকা ধার করেছি। তা দিয়ে সংসার চলছে। নিজেরা না খাই, ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদেরতো খাওয়াতে হবে।

সরকারি কোন সহায়তা পেয়েছে কি না জানতে চাইলে বলেন, কে দেবে। এখন পর্যন্ত এমন খবর পাইনি। সহায়তা পেলেতো দু-বেলা খেয়ে ছেলে-মেয়ে নিয়ে বাচতে পারতাম। এমন পরিস্থিতি আর কতদিন থাকবে তা আল্লাহ জানে। কিন্তু আমাদের তো দিন চলছে না।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীর উদ্দেশে দেয়া ভাষণে ১০টি নির্দেশনার একটি ছিল দুস্থদের সহায়তা করা। করোনাভাইরাসের কারণে নিম্ন আয়ের কোনো ব্যক্তি যদি স্বাভাবিক জীবনযাপনে অক্ষম হয়, তাহলে সরকারের ঘরে ফেরার কর্মসূচি আওতায় তাদের সহায়তা দেয়া হবে।

এসব নিম্ন আয়ের মানুষের কাছে এখনও পৌঁছায়নি সরকারি কোন সহায়তা। এমন পরিস্থিতিতে যতদিন যাবে আরও দুর্বিসহ হবে তাদের জীবন ধারন। তাই দ্রুত তাদের তালিকা করে সরকারি সহায়তা পৌঁছে দেয়ার আহ্বান এসব নিম্ন আয়ের মানুষদের।

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

ঝুঁকিপূর্ণ ২৩ কেন্দ্র, ৫ স্তরের নিরাপত্তা

ইমতিয়াজুর রহমান, ভোলা : ভোলার দুই পৌরসভায় শান্তিপূর্ণ ভোটগ্র...

পুলিশের কাছে অভিযোগ দেয়ায় হামলা, আহত ৫

নিজস্ব প্রতিনিধি, পিরোজপুর : পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে জমি নিয়...

লিটলম্যাগ স্টল বরাদ্দের আবেদন শুরু রোববার

হাসনাত শাহীন: বাংলা ভাষা সাহিত্যের চর্চা, বিকাশ, ব...

সিলেটে দুই বাসের সংঘর্ষে ৮ জন নিহত

নিজস্ব প্রতিনিধি, সিলেট : ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের রশিদপুরে এনা প...

তরুণী মেয়েকে খুনের অভিযোগ মায়ের বিরুদ্ধে

মাসুম লুমেন, গাইবান্ধা: গাইবান্ধায় নিজের মেয়েকে ধারালো বটি দ...

রাত পোহালেই ২৯ পৌরসভায় ভোট

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাত পোহালেই পঞ...

জলবায়ু নিয়ে কাজ করতে সম্মত বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ ও যুক্...

দশম আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াডের পুরস্কার বিতরণ

সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক: আন্তঃস্কুল...

‘আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে দাবি আদায় করতে হব’

নিজস্ব প্রতিনিধি, খুলনা: খুলনায় মহাসমাবেশে বিএনপির ভাইস-চেয়া...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা