বিশেষ সংবাদ

বিশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক

দিল্লিতে মুসলিমদের সাহযোগিতায় হিন্দু নারীর বিয়ে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ভারতে হিন্দুত্ববাদী ধর্মীয় উন্মাদনার পরও অনেকের মধ্যে দেখা গেছে একেবারে বিপরীত চিত্র। জয় শ্রী রাম ধ্বনি দিয়ে হত্যা করছে মুসলমানদের, পুড়িয়ে দিচ্ছে ঘরবাড়ি, এলাকা ছেড়ে পালাচ্ছে অনেকে। এই ভয়াবহ অবস্থার মধ্যেই মুসলমানদের সহায়তায় দিল্লিতে সাভিত্রা প্রসাদ নামের এক হিন্দু নারীর বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। এমনটি জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

ধর্মীয় উন্মাদনার শেকল ভেঙে কেবল মানবতার হাতকে এগিয়ে দিচ্ছেন আরও অনেকে।

এনডিটিভি'র প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার রাতে দিল্লির চাঁদবাগের মুসলিম অধ্যুষিত এলাকার বাসিন্দা হিন্দু নারী সাভিত্রি প্রসাদের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। তবে সংঘর্ষের কারণে বাধ্য হয়ে বিয়ে বন্ধ করে দেন সাভিত্রির বাবা। নিজের আত্মীয়দের আমন্ত্রন জানালেও কাছের কেউ আসেননি বিয়েতে।

পরের দিন সংঘর্ষ চললেও এলাকার কিছু মুসলমানদের সাহায্য নিয়ে ওই হিন্দু নারীর বিয়ে দেয়া হয়। এই বিষয়ে সাভিত্রি প্রসাদ বলেন, আমার মুসলিম ভাইয়েরা আমাকে আজ বাঁচিয়েছে।

বিয়ের আয়োজন নিয়ে সাভিত্রির বাবা ভোদয় প্রসাদ বলেন, এটা ভয়ানক ব্যপার। আমরা শান্তি চাই। আমার মেয়ের বিয়েতে কোন আত্মীয়-স্বজন আসতে পারেননি। কিন্তু দেখের এই মুসলমান ভাইরা এগিয়ে এসেছেন। নিজের থেকেও কেউ এল না, এই মুসলমানরাই আমার পরিবার।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, সাভিত্রির প্রসাদের বাড়িতেই অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। তবে সংঘর্ষের কারণে এই বিয়েতে সাভিত্রি প্রসাদের কোন আত্মীয়-স্বজন উপস্থিত থাকতে পারেননি।

এদিকে ধর্মীয় উন্মাদনায় টালমাটাল পুরো দিল্লিতে আরেক মানবতার দূত হয়ে উঠলেন উত্তর-পূর্ব দিল্লির শিববিহার এলাকার প্রেমকান্ত বাঘেল। নিজের জীবনকে তুচ্ছজ্ঞান করে হামলাকারীদের চোখের সামনে প্রতিবেশীদের প্রাণ বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়েন তিনি। জ্বলন্ত ঘরের ভিতরে আটকা পড়া ৬ জন অগ্নিদগ্ধ মানুষকে উদ্ধার করে আনেন তিনি।

দগ্ধদের উদ্ধারের পর হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থাও করেন প্রেমকান্ত। কিন্তু এই কাজ করতে গিয়ে তাঁর নিজের শরীরের ৭০ শতাংশই পুড়ে যায় আগুনে। বর্তমানে হাসপাতলে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দিল্লির জি টি বি হাসপাতালে ভর্তি আছেন তিনি। সেখানে বার্ন ইউনিটে তার চিকিৎসা চলছে।

প্রেমকান্ত বাঘেল জানান, বর্তমানে নিজের জীবনের সঙ্গে লড়াই করতে হলেও, তিনি বন্ধুর মায়ের জীবন বাঁচাতে পেরে আনন্দিত।

এখনও থমথমে দিল্লির এলাকাগুলো। এমন অবস্থায় দিল্লির পুলিশ কমিশনার অমূল্য পট্টনায়েককে সরিয়ে দিল্লি পুলিশের বিশেষ কমিশনার (আইন ও শৃঙ্খলা) এসএন শ্রীবাস্তবকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল এনডিটিভিকে বলেন, দাঙ্গার সময় দিল্লি পুলিশের প্রতি মানুষের বিশ্বাস ছিল না। এমনকি, দিল্লি পুলিশ কমিশনারের ভাবমূর্তিও খুব ভালো ছিল না। তাই এ পরিবর্তন।

প্রসঙ্গত, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) নিয়ে ভারতের রাজধানী দিল্লিতে গত সোমবার শুরু হয় সংঘাত । এই ঘটনায় দিল্লিতে মারা গেছেন কমপক্ষে ৪২ জন, আহত হয়েছেন দু'শতাধিক মানুষ। এছাড়া গ্রেফতার হয়েছেন প্রায় ৪শ।

……………..

নিউজ ডেস্ক:
রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে গিয়ে ধর্মীয় বিভাজনে দেশকে দু-ভাগ করে ফেলছে ভারতের হিন্দুত্ববাদী মোদি সরকার। নাগরিকত্ব আইন সংশোধনের মধ্য দিয়ে হিন্দু জনগোষ্ঠির একাংশকে করে তুলেছে উন্মত্ত। ঝাপিয়ে পড়ছে সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষের ওপর। সিএএ আইনকে ঘিরে গত রবিবার থেকে দিল্লিতে শুরু হওয়া সংঘর্ষ রূপ নেয় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায়। এরই মধ্যে খবর পাওয়া গেছে ৪০ জন নিহত হওয়ার। শতশত ব্যক্তি হাসপাতালের বিছানায়। এই সংঘর্ষের আবহে ভারতে হিন্দুত্ববাদ যখন কাঠগড়ায় উঠেছে, তখন নিজে একজন হিন্দু হয়েও মনুষ্যধর্ম পালন করতে গিয়ে এখন মৃত্যূর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন প্রেমকান্ত। শুধু প্রেমকান্তই নন, ধর্মীয় উন্মাদনার শেকল ভেঙে কেবল মানবতার হাতকে এগিয়ে দিচ্ছেন আরও অনেকে।

একের পর এক যখন আসছে মৃত্যুর খবর, ধর্মীয় উন্মাদনায় টালমাটাল পুরো দিল্লি, তখনই মানবতার দূত হয়ে উঠলেন উত্তর-পূর্ব দিল্লির শিববিহার এলাকা প্রেমকান্ত বাঘেল। দীর্ঘদিন ধরে হিন্দু এবং মুসলমানরা অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণভাবে বসবাস করে আসছিলেন। জানা গত বুধবার রাতে নাগরিকত্ব সংশোধন আইনপন্থী হিন্দু মানুষেরা দল বেঁধে আক্রমন শুরু করে ওই এলাকার মুসলিম মহল্লাগুলোয়। আগুন দেয়া হতে থাকে একের পর এক বাড়িতে। প্রাণভয়ে পালাচ্ছিলেন মুসলিমরা। সেখানেই বাড়ি প্রেমকান্ত বাঘেলের। তাঁর প্রতিবেশী মুসলিম বাড়িগুলোতে পেট্রোল বোমা ছুড়ে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু কেবল অন্য ধর্মের হওয়ার কারণে চোখের সামনে কারও প্রাণ যাবে, তা মানতে পারেননি প্রেম।

তাই নিজের জীবনকে তুচ্ছজ্ঞান করে হামলাকারীদের চোখের সামনে প্রতিবেশীদের প্রাণ বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়েন তিনি। জ্বলন্ত ঘরের ভিতরে আটকা পড়ে থাকা একে একে ৬ জন অগ্নিদগ্ধ মানুষকে উদ্ধার করে আনেন ঘরের বাইরে। উগ্রপন্থী আক্রমণকারীদের রক্তচক্ষুকে ভয় না পেয়ে দগ্ধদের হাসপাতালেও পাঠানোর ব্যবস্থার উদ্যোগ নেন প্রেমকান্ত। কিন্তু এই কাজ করতে গিয়ে তাঁর নিজের শরীরের ৭০ শতাংশই পুড়ে যায় আগুনে।

ট্রাজেডির শেষ এখানেই নয়। প্রেমকে হাসপাতালে নিতে প্রতিবেশীরা একটি অ্যাম্বুলেন্স ডাকেন। কিন্তু ভয়েই হোক বা যে কোনও কারণেই হোক, সেই অ্যাম্বুল্যান্স তাঁকে হাসপাতালে পৌঁছে দিতে রাজি হয়নি সে রাতে। সারা রাত পোড়া শরীরে কষ্ট পেতে থাকেন প্রেম। পরিবারের সদস্যরা আশা ছেড়ে দেন তাঁর বেঁচে থাকার। সকালে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় জিটিবি হাসপাতালে। এখনও বেঁচে আছেন তিনি, কিন্তু অবস্থা সঙ্কটাপন্ন।

গুরুতর আহত অবস্থাতেই সংবাদমাধ্যমকে প্রেমকান্ত বাঘেল বলেন, “সময়টা খুব খারাপ। তবে সকলেই যে এখানে আক্রমণাত্মক, তা নয়। এই হিংসার মধ্যেও আমার মতো আরও অনেকেই ছিলেন যারা সহমর্মিতা নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য ঘর থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন। সিএএ নিয়ে আন্দোলনের সময় আমিও সেখানে সক্রিয় ছিলাম। কিন্তু যখন সেটিতে সাম্প্রদায়িক রং লাগতে শুরু করে, তখন আমি সরে আসি।”

অন্য দিকে দিল্লির শিখ সম্প্রদায়ও পাশে দাঁড়িয়েছে আক্রমনের শিকার মানুষদের পাশে।তাদেরকে আশ্রয় দিতে গুরুদোয়ারার দরজা খুলে দেয়া হয়েছে ২৪ ঘন্টার জন্য। অশোকনগরের একাধিক এলাকায়ও ক্ষতিগ্রস্ত বেশ কয়েকটি মুসলিম পরিবারকে নিজেদের বাড়িতে থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন হিন্দুরা। আবার বুধবার হাতে হাত রেখে মানবশৃঙ্খল করে চাঁদবাগের একটি মন্দির ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করেছেন সেখানকার মুসলিমরাও।

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে শেখ হাসিনার দেশে ফিরে আসার দিন আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক : আজ ৭ মে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে শেখ হাসিনা&r...

করোনায় বিশ্বে ৩২ লাখ ৬৯ হাজার মৃত্যু

সান নিউজ ডেস্ক : মহামারি করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে কাবু বিশ্ববাস...

করোনাভাইরাস: আরও ৩৭ মৃত্যু

সাননিউজ ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী তাণ্ডব...

যমুনায় ডুবে শিশুর মৃত্যু 

রেজাউল করিম, সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীতে ডুবে ইব্রাহীম...

বাস উল্টে স্কুল শিক্ষকের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিনিধি, নটোর: নাটোরে সড়...

অতপর কঙ্গনারও...

বিনোদন ডেস্ক : করোনা আক্রান্ত কঙ্...

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে চলছে দূরপাল্লার বাস

নিজস্ব প্রতিনিধি, টাঙ্গাইল : নি...

ঈদের আগে ব্যাংক খোলা দুই দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক : পবিত্র ঈদ-উল...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা