বিশেষ সংবাদ

বিশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক

ভারতে করোনার নতুন প্রজাতি, ৫ রাজ্যে সতর্কতা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কিছু দিন আগেও ভারতীয় চিকিৎসকদের একাংশ মনে করছিলেন, করোনা যুদ্ধে জয়ের পথে এগোচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ। টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হওয়ায় এবং আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত কমতে থাকায় কিছুটা স্বস্তিও পেয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের প্রশাসনিক কর্তারা। ঠিক সেই সময়ই চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য বদলে ফিরে এলো করোনা ভাইরাস।

শুক্রবার ( ২৬ ফেব্রুয়ারি) মস্বাস্থ্যভবন জানিয়েছে, হারাষ্ট্র, পাঞ্জাব, কেরালা, কর্নাটক, ছত্তীসগড়ের কোনও বাসিন্দা কলকাতা বিমানবন্দরে নামলেই তার শারীরিক পরীক্ষা করা হবে। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকর্তা অজয় চক্রবর্তী বলেন, 'আমরা সব রকমের প্রস্তুতি নিয়ে রাখছি। সংশ্লিষ্ট রাজ্য থেকে যারা বিমানবন্দর হয়ে আসবেন, তাদের শারীরিক পরীক্ষা করা হবে। আরও পরীক্ষা এবং টিকাকরণের ওপরে জোর দেয়া হচ্ছে। করোনা যুদ্ধ জয় করতে হলে রাজ্যবাসীকেও সচেতন হতে হবে।'

জিনের সিকোয়েন্স করে জানা গেছে, ভারতে করোনার নতুন প্রজাতির সন্ধান মিলেছে। মহারাষ্ট্র, পাঞ্জাব, কেরালা, কর্নাটক, ছত্তীসগড়ে যেভাবে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন বাড়ছে, তাতে ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ (সেকেন্ড ওয়েভ) আছড়ে পড়লে অবাক হওয়ার কিছু নেই বলেই মনে করছেন চিকিৎসকেরা। সে কথা মাথায় রেখেই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে প্রতিটি হাসপাতালকে তৈরি থাকতে বলা হয়েছে। করোনা পরীক্ষা আরও বাড়ানোর উপরেও নতুন করে জোর দেয়া হচ্ছে।

চিকিৎসকদের মতে, 'লকডাউন পর্বে মানুষের মধ্যে করোনা ভাইরাস নিয়ে যে সচেতনতা গড়ে উঠেছিল। যে আতঙ্ক ছিল, তা এখন নেই। অনেকেই ভাবছেন, আমরা করোনাকে জয় করে ফেলেছি। কিন্তু কেরালা, মহারাষ্ট্র ও পাঞ্জাবে যেভাবে করোনা আবার থাবা বসিয়েছে, তা দেখে সচেতন না হলে বড় খেসারত দিতে হবে।'

রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান বলছে, ১ জানুয়ারি পশ্চিমবঙ্গে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল এক হাজারের ওপর। জানুয়ারির মাঝামাঝি থেকে আক্রান্তের সংখ্যা কমতে থাকে। একটা সময়ে দৈনিক সংক্রমণ ২০০-রও নিচে নেমে গিয়েছিল। তার পর আবার বুধবার রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ২০২ জন। তার আগে শেষবার ওই সংখ্যা ২০০-র উপর ছিল গত ১২ ফেব্রুয়ারি।

তার পর থেকে আক্রান্তের সংখ্যা কমতে থাকায় রাজ্যে সুস্থতার হার (ডিসচার্জ রেট) পৌঁছে গেছে ৯৭.৬৩ শতাংশে। কিন্তু পরিস্থিতির দ্রুত বদল ঘটছে। চিকিৎসকদের একাংশ জানাচ্ছেন, এখনই সচেতন না হলে আবার লকডাউন পর্বের মতোই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিতে ফিরতে পারে পশ্চিমবঙ্গ। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক চিকিৎসকের কথায়, “রাজ্যে বিধানসভা ভোট নিয়ে যতটা ঢাকঢোল পেটানো হচ্ছে, করোনা নিয়ে যদি সরকারি স্তরে প্রচারে সেই গুরুত্ব দেয়া হলে মানুষের মধ্যে টিকা নিয়ে ভয় কমে যেত। সকলেই টিকা নিতেন।’

সান নিউজ/এসএ

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

যুবকের সঙ্গে ধস্তাধস্তি, সেই পুলিশ কর্মকর্তা ক্লোজড

নিজস্ব প্রতিনিধি, ফেনী : ফেনীতে রিকশা থেকে যুবককে শার্টের কল...

আজ খুলছে বীমা কোম্পানির অফিস

নিজস্ব প্রতিবেদক : সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ জনবল নিয়ে আজ থেকে চালু...

‘ঈদের আগে লকডাউন শিথিলের চিন্তাভাবনা’

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশেষজ্ঞদের পর...

চুল কাটার অনুভূতি!

আসমাউল মুত্তাকিন: আমার স্পষ্ট মনে আছে, তখন আমি প্রথম শ্রেণিত...

প্রধানমন্ত্রীর কাছে জাফরুল্লাহর খোলা চিঠি

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকায় গণস্বাস...

অস্তিত্ব সংকটে পাদুকা শিল্প

নিয়ামুল ইসলাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:...

মসজিদ যখন হাসপাতাল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী কর...

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের টেস্ট দল ঘোষণা

স্পোর্টস ডেস্ক: স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আগামীকাল বুধবার...

আপত্তিকর ভিডিও ধারণ : গ্রেফতার ৬

নিজস্ব প্রতিবেদক, চুয়াডাঙ্গাঃ চুয়...

খাবারের ব্যবস্থা না করে লকডাউন অবাস্তব : ন্যাপ  

নিজস্ব প্রতিবেদক:দেশের বর্তমান কর...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা