বিশেষ সংবাদ

বিশেষ সংবাদ

জাতীয়
দূষণ রোধে কাজে আসছে না কোন পরিকল্পনাই

ঢাকার চার নদীতে প্রতিদিন জমছে ৫০ হাজার টন বর্জ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বুড়িগঙ্গা, বালু, শীতলক্ষ্যা আর তুরাগ। নদীগুলো প্রকৃতির আশীর্বাদ হয়ে ঘিরে রেখেছিল ঢাকাকে। সেই আশীর্বাদকে অভিশাপে পরিণত করা হয়েছে কেবল মানুষের ভোগ আর আগ্রাসী মানসিকতায়। চারদিকে নদী দিয়ে ঘিরে থাকা ঢাকা’ই একমাত্র ব্যতিক্রমী রাজধানী, যেমনটা পৃথিবীর আর কোথাও নেই। ঠিক আবার প্রকৃতির এমন সুনিঁপুন আয়োজনকে তিলে তিলে হত্যা করার দৃষ্টান্তও খুঁজে পাওয়া যাবে না কোথাও।

ঢাকার চারপাশে ঘিরে থাকা চার নদীর বুকে প্রতিদিন জমছে প্রায় ৫০ হাজার মেট্রিক টন বিষাক্ত কঠিন ও তরল বর্জ্য । এর মধ্যে ৬০ শতাংশ শিল্প ও স্যুয়ারেজ বর্জ্য, ১৫ শতাংশ কঠিন বর্জ্য, ১০ শতাংশ নৌযান বর্জ্য ও অন্যান্য বর্জ্য ১৫ শতাংশ। অন্যান্য বর্জ্যের মধ্যে রয়েছে হাসপাতাল, ডকইয়ার্ড ও ইটভাটার বর্জ্য, পলিথিন ইত্যাদি। এ তথ্য নদী গবেষণা ইনস্টিটিউটের।

ঢাকার চারপাশের নদীগুলোতে বেড়ে চলেছে দূষণের মাত্রা। নদীর পানি একেবারে কালো কুচকুচে। পানি থেকে ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ। শ্বাস নেয়াটাই এখন কষ্টসাধ্য। পানি এতই দূষিত যে মাছ তো দূরের কথা, বাঁচতে পারছে না জলজপ্রাণিও। ঢাকার চারপাশের চারটি নদী দূষণ রোধে কাগজে-কলমে মহাপরিকল্পনার কথা থাকলেও নেই দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি।

বুড়িগঙ্গা নদীর পানি পরীক্ষায় দেখা গেছে ক্রোমিয়াম, নাইট্রেট, সিসা ও উচ্চ মাত্রায় পারদসহ ৬৮ প্রকার অপরিশোধিত রাসায়নিক পদার্থের অস্তিত্ব রয়েছে। প্রতি লিটার পানিতে ক্রোমিয়াম রয়েছে দশমিক ৪৮ মিলিগ্রাম । দশমিক ৫০ মিলিগ্রাম ক্রোমিয়াম মিশ্রণ পানি পান করলেই মানুষ মারা যাবার সম্ভাবনা রয়েছে। বুড়িগঙ্গা এই মুহূর্তে পৃথিবীর সবচে বড় বিষাক্ত পানি ভাণ্ডারে পরিণত হয়েছে।

নদীগুলোর বিশাল অংশের পানিতে অক্সিজেনের পরিমাণ শূন্যের কাছাকাছি। সদরঘাটে লিটার প্রতি দ্রবীভূত অক্সিজেন পরিমাণ দশমিক ৪০ মিলিগ্রাম, ধোলাইখালে দশমিক ৩৮, পোস্তাগোলা-শ্মশানঘাটে দশমিক ৫৫, শ্যামপুরে দশমিক ৬২ মিলিগ্রাম, পাগলা বাজার এলাকায় দ্রবীভূত অক্সিজেন পরিমাণ মাত্র দশমিক ৩০ মিলিগ্রাম। পরিবেশ অধিদপ্তরের পরীক্ষায় দেখা গছে, গেলো বছর পানিতে দ্রবীভূত অক্সিজেনের পরিমাণ ছিলো গড়ে শূন্য দশমিক ৩৮ মিলিগ্রাম। গত বছরের তুলনায় আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে নদী দূষণের মাত্রা।

ঢাকার চারপাশে ঘিরে থাকা বুড়িগঙ্গা, বালু, শীতলক্ষ্যা ও তুরাগ নদীর চারপাশে ছোট বড় মিলে প্রায় আড়াই লাখ শিল্প-কারখানা রয়েছে। এসব শিল্প-কারখানার ৯৯ ভাগেরই নেই পানি শোধনাগার। এর ফলে কারখানাগুলোর তরল বর্জ্যের অধিকাংশই গিয়ে পড়ে এই চারটি নদীতে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রাজধানীতে পয়ঃবর্জ্যরে পরিমাণ প্রায় ১৩ লাখ ঘনমিটার। এসব বর্জ্য পরিশোধনের জন্য ওয়াসার সক্ষমতা রয়েছে মাত্র এক লাখ ২০ হাজার ঘনমিটার। কিন্তু ওয়াসা দৈনিক পরিশোধন করতে পারছে মাত্র ৫০ হাজার ঘনমিটার। বাকি সাড়ে ১২ লাখ ঘনমিটার বর্জ্য অপরিশোধিত অবস্থায় সরাসরি পড়ছে নদীতে।

এরই মধ্যে সাভারে স্থানান্তর করা হয়েছে ট্যানারি শিল্প। এতে কমেছে ট্যানারি বর্জ্যের পরিমাণ। তারপরও ট্যানারিশিল্প থেকে প্রতিদিন ২১ হাজার কিউবিক মিটার অপরিশোধিত বর্জ্য গিয়ে পড়ছে নদীগুলোতে।

আবার প্রতিদিনিই বৃদ্ধি পাচ্ছে রাজধানী ঢাকার জনসংখ্যা। গড়ে উঠছে নতুন নতুন শিল্প কারখানা ও ইটভাটা। এর ফলে আরও বাড়ছে দূষণের মাত্রা। আইডব্লিউটিএ’র জরিপ রিপোর্টে বলা হয়েছে, বুড়িগঙ্গ নদীর তলদেশে জমা হয়েছে অন্তত ৮ ফুট পুরু পলিথিনের স্তর।

গত বছর ঢাকার চারপাশের নদী দূষণ রোধে ১০ বছর মেয়াদি মহাপরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছে সরকার। নদী দূষণের ৯টি কারণ চিহ্নিত করে সাজানো হয়েছে পরিকল্পনা। নদী দূষণ ও দখল রোধ এবং নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে চার ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার কথা বলা হয়েছে। এটি বাস্তবায়ন করতে কিছু কর্মপরিকল্পনা রয়েছে এক বছর মেয়াদি, কিছু তিন বছর, পাঁচ বছর ও কিছু পরিকল্পনা রয়েছে ১০ বছর মেয়াদি।

পরিকল্পনা চূড়ান্ত হবার পর এরই মধ্যে অতিবাহিত হয়েছে ছয় মাস।

এক বছর মেয়াদি যে পরিকল্পনা ছিলো তার কতটুকু বাস্তবায়ন করতে পেরেছে সরকার?

দৃশ্যমান অগ্রগতি বলতে গতবছর ঢাকার চারটি নদীর পাড় থেকে অধিকাংশ অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তাদের এ অভিযান প্রসংশিত হয়েছে সব মহলে। তবে নতুন বছর উচ্ছেদ অভিযান চালানোর দৃশ্য দেখা যায়নি।

কিন্তু নদী দূষণ রোধে চোখে পড়ার মতো কোন পদক্ষেপ ছিল না। হাজার হাজার শিল্প কারখানার বর্জ্য গিয়ে মিশছে নদীতে। মিশছে স্যুয়ারেজ বর্জ্য। এসব কারাখানার বিরুদ্ধে নেয়া হয়নি কার্যকর কোন পদক্ষেপ। কোন ধরনের বাঁধা ছাড়াই চলছে অবৈধ কারখানাগুলো।

ঢাকার চারপাশের বুড়িগঙ্গা, বালু, শীতলক্ষ্যা ও তুরাগ নদী বাঁচাতে কাজ করছে- পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন- পবা, পরিবেশ আইনবিদ সমিতি- বেলা, হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পীস ফর বাংলাদেশ, রিভারাইন পিপলসহ বেশ কিছু সংগঠন। নদিগুলো বাঁচাতে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার পাশাপাশি আইনগত লড়াইও চলছে। একের পর এক রিট হচ্ছে। আদালতের পক্ষ থেকে অনেক ধরণের নির্দেশনাও দেয়া হচ্ছে। কিন্তু দূষণ রোধে কোন প্রতিকার হচ্ছে না।

সরকারি-বেসরকারি সব মহলের উদাসিনতায় ঢাকার চারপাশের নদীগুলো কি অদূর ভবিষ্যতে হারিয়ে যাবে, না কি সরকার ১০ বছর মেয়াদি যে মহাপরিকল্পনা নিয়েছে তার পুরোপুরি বাস্তবায়ন করে ফিরিয়ে আনবে মৃতপ্রায় নদীগুলোর হারানো রূপ ও যৌবন? এটিই এখন সময়ের প্রশ্ন।

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

‘কাপড় খুলে রাস্তার মধ্যে পিটাবো’ (অডিও)

সাননিউজ ডেস্ক: ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের (ভিএনএসস...

গরুর মাংসের শুটকি

সান নিউজ ডেস্ক: শুটকি, ভাজা এবং ভ...

করোনায় মৃত্যু ২৪৭ জনের

নিজস্ব প্রতিবেদক: গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও...

ইয়নসি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’

কূটনৈতিক প্রতিবেদক: জাতির পিতা বঙ...

হরিপুর অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর মেশিন হস্তান্তর

নিজস্ব প্রতিনিধি, ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলার...

সমন্বিত মহাপরিকল্পনা প্রণয়নের উদ্যোগ নেওয়া হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের দীর্ঘমেয়াদী...

সিনোফার্মের টিকা পাচ্ছে রোহিঙ্গারা

নিজস্ব প্রতিবেদক: মরণব্যাধি করোনাভাইরাস প্রতিরোধে চীনের তৈরি...

‘অসত্য প্রতিবেদন’ প্রকাশে আরএসএফকে উকিল নোটিস

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশের প্রধ...

লকডাউনে চলছে কোচিং

নিজস্ব প্রতিনিধি, মুন্সীগঞ্জ: করোনা মহামারির কারণে দেশে সব শ...

পর্ন জগতে ফ্লোরার নাম!

বিনোদন ডেস্ক: ‘স্ত্রী&rsquo...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা