বিশেষ সংবাদ

বিশেষ সংবাদ

সারাদেশ

আনসারীর জানাজায় অংশ নেয়ায় সরাইলের ৬ গ্রাম লকডাউন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিবেদক:

মাওলানা জোবায়ের আহমদ আনসারীর জানাজায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ ও সরাইল থেকেই বেশিরভাগ মানুষ অংশ নিয়েছেন বলে ধারণা করছে প্রশাসন। আর এ জন্য তাদের কোয়ারেন্টিনের আওতায় আনতে যাচ্ছে পুলিশ।

শনিবার (১৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আনিসুর রহমান এ কথা নিশ্চিত করেন।

এরিমধ্যে সরাইলে ছয়টি গ্রাম লকডাউন করা হয়েছে। গ্রামের কেউ যাতে বের হতে না পারে সেজন্য অতিরিক্ত পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের বলেন, জেলার আশুগঞ্জ ও সরাইল উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে লোকজন বেশি অংশ নিয়েছে ওই জানাজায়। ওইসব গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হচ্ছে। ওই গ্রামগুলোর লোকজন যেন ঘর থেকে বের হতে না পারেন সেজন্য তাদের হোমকোয়ারেন্টিন করা হবে।’

তিনি আরো জানান, নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে ছোট পরিসরে জানাজা হবে বলে সংশ্লিষ্টরা আমাদের কথা দিয়েছিলেন। কিন্তু সেটা তারা করেননি।

সরাইলের পানিশ্বর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জানান, মাওলানা জোবায়ের আনসারীর মৃত্যুর সংবাদ নিয়ে শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) কোনও মাইকিং হয়নি। আমরা শুনিনি। মানুষ কীভাবে দলে দলে অংশ নিতে গেলো সেটা বলতে পারবো না। ফেসবুক থেকে জেনে হতে পারে। তবে আজ শনিবার বিকাল ৫টার পর এই উপজেলার ছয়টি গ্রাম লকডাউন করা হয়েছে। বেড়তলা, বলিবাড়ী, সীতাহরণ, শান্তিনগর, মইশার, টিঘর এই গ্রামগুলো লকডাউন করা হয়েছে।

সরাইল থানার ওসি শাহাদাত হোসেন টিটু জানান, জেলা লকডাউনের পরও আলাদা করে এই ছয়টি গ্রাম লকডাউন করা হলো। এখান থেকেই বেশি লোক জানাজায় অংশ নিয়েছে। যেহেতু লোকজন লকডাউন উপেক্ষা করে বের হয়েছে এবং হচ্ছে, তাই এলাকা বিশেষভাবে লকডাউন করা হলো।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা বিবেককে কবর দিয়ে আবেগকে প্রাধান্য দিয়ে যে কাজ করি, এটাই তার প্রমাণ। কারণ ধর্মীয় আদেশ ও সরকারি আদেশে লোক সমাগম নিষেধ করা হয়েছে। এরপরও এতো লোক সমাগম কেন?

তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এতো লোক কি আকাশ দিয়ে এসে জমায়েত হয়েছে। ঘটনা যা ঘটার ঘটে গেছে। এখন আর কিছু করার আছে বলে মনে হয় না। তারা (আইন শৃঙ্খলা বাহিনী) কোথায় ছিলেন। এটা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পুরো ব্যর্থতা ও এ দায় তাদের।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান বলেন, উনারা (মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ) আমাদের বলেছিলেন সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করবেন। কিন্তু সেটা তারা কেন করেননি তা খতিয়ে দেখা হবে।

উল্লেখ্য, গত শনিবার (১১ এপ্রিল) সন্ধ্যা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় লকডাউন চলছে।

সান নিউজ/সালি

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

যুবকের সঙ্গে ধস্তাধস্তি, সেই পুলিশ কর্মকর্তা ক্লোজড

নিজস্ব প্রতিনিধি, ফেনী : ফেনীতে রিকশা থেকে যুবককে শার্টের কল...

আজ খুলছে বীমা কোম্পানির অফিস

নিজস্ব প্রতিবেদক : সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ জনবল নিয়ে আজ থেকে চালু...

জেনিথ ইসলামী লাইফের চেয়ারম্যানের সুস্থতা কামনা

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা আক্রান্ত জেনিথ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুর...

৮ হাজার কেজি পচা খেজুর জব্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক,মুন্সীগঞ্জ: মুন্...

উপবৃত্তির ৬ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র

স্বপন দেব, নিজস্ব প্রতিবেদক : মৌলভীবাজার জেলায় ১ হাজার ৪৬৩ জ...

লকডাউনে ঢাকার বায়ুমানের উন্নতি

নিজস্ব প্রতিবেদক : মহামারি করোনা...

খুরশিদ কাসেমীসহ হেফাজতের ২ নেতা গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ খেলাফত...

ঢাবিতে সেমিস্টার-সেশনের সময় কমানোর চিন্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাস পর...

সরাইলের ঘরে ঘরে নবান্নের উৎসব

নিজস্ব প্রতিনিধি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া:...

ক্ষুধা ও পিপাসা নিয়ন্ত্রণে সেহরিতে যা খাবেন

লাইফস্টাইল ডেস্ক : বছর ঘুরে এসেছে...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা