আন্তর্জাতিক

দাড়ি বোরখার জন্য চীনে বন্দি করা হচ্ছে মুসলিমদেরকে

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক:

চীনের উইঘুর মুসলিমদের ওপর রাষ্ট্রীয় নির্যাতনের খবর অনেক পুরনো। ২০১৭ সালে উইঘুর মুসলমানদের জন্য বন্দীশিবির চালু করে চীনা কর্তৃপক্ষ। নিজ ধর্মের কোন আচার বা রীতিনীতিই স্বাভাবিকভাবে পালন করতে পারেন না এই সম্প্রদায়টি। দাড়ি রাখা, বোরখা পরা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য চীনের উইঘুর মুসলিমদের অনেককে বন্দি করা হচ্ছে। সম্প্রতি উইঘুর মুসলিমদের ওপর নিপীড়ন ও নির্যাতনের নতুন ফাঁস হওয়া দলিলে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

নতুন করে ফাঁস হওয়া দলিলে চীনের পশ্চিমাঞ্চলীয় শিনজিয়াং অঞ্চলে তিন হাজারের বেশি নাগরিকের দৈনন্দিন জীবনের যাবতীয় খুঁটিনাটিসহ ব্যক্তিগত তথ্য সংরক্ষণের প্রমাণ পাওয়া গেছে। বিবিসি জানিয়েছে, গত বছর শিনজিয়াং অঞ্চলের যে সূত্রের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ সরকারি নথি পাওয়া গিয়েছিল, এবারও সেই সূত্রের মাধ্যমেই নতুন দলিলপত্র পাওয়া গেছে।

১৩৭ পৃষ্ঠার দলিলে প্রতিটি পৃষ্ঠায় ভিন্ন ভিন্ন কলাম এবং ছক কেটে ঐ মানুষেরা কতবার নামাজ পড়েন, কী পোশাক পরেন, কাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের আচার আচরণের বিস্তারিত লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।

তবে, চীনের সরকার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে এগুলো দেশটির সন্ত্রাসবাদ এবং ধর্মীয় উগ্রপন্থা মোকাবেলায় নেয়া পদক্ষেপের অংশ।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এসব দলিল অত্যধিক ব্যক্তিগত ঝুঁকি নিয়ে সংগ্রহ করা হয়েছে।
শিনজিয়াংয়ে চীনা নীতির একজন বিশেষজ্ঞ ড. অ্যাড্রিয়ান জেনজ, যিনি ওয়াশিংটনে ভিক্টিমস অব কম্যুনিজম মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের একজন সিনিয়র ফেলো, তিনি মনে করেন ফাঁস হওয়া এসব দলিল আসল।

নতুন দলিলে সংখ্যালঘু উইঘুর সম্প্রদায়ের ৩১১ জন মানুষের ব্যাপারে ব্যাপকভিত্তিক অনুসন্ধানের অর্থাৎ তাদের পূর্ব ইতিহাস, ধর্মীয় আচার পালনের দৈনন্দিন রুটিন, তাদের আত্মীয়স্বজন, প্রতিবেশী এবং বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগের বিস্তারিত তথ্য রয়েছে এসব দলিলে। রিপোর্টের শেষ কলামে সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে, ঐ ব্যক্তিদের বন্দিশিবিরে আরও রাখা হবে, নাকি তাদের ছেড়ে দেয়া হবে, অথবা আগে ছেড়ে দেয়া হয়েছে এমন কাউকে আবার বন্দি শিবিরে ফিরিয়ে আনতে হবে কিনা।

প্রাপ্ত দলিল বিশ্লেষণ করে ড. জেনজ বলছেন, এসবের মাধ্যমে ওখানে চলা সিস্টেমের ব্যাপারে ধারণা যেমন পাওয়া যায়, তেমনি ক্যাম্পে থাকা মানুষের ‘আদর্শিক ও মনস্তাত্ত্বিক কাঠামো’ অনুযায়ী তাদের বিভক্ত করে পর্যালোচনা করার ব্যাপারেও ধারণা পাওয়া যায়।

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

আলফাডাঙ্গায় অস্ত্রসহ অপহরণকারী গ্রেফতার

বোয়ালমারী প্রতিনিধি : ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা থেকে অপহরণের ১৯ দ...

জ্বালানি মূল্য সমন্বয় করা হবে

সান নিউজ ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির কারণে শে...

অস্ত্রসহ এক যুবক গ্রেফতার

মো. নাজির হোসেন, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জে ডিবি পুলিশ অভিযান চ...

উলিপুরে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে আহত

কামরুজ্জামান স্বাধীন, উলিপুর (কুড়িগ্রাম): কুড়িগ্রামের উলিপুর...

সংগ্রামের সারথি ছিলেন আমার মা

সান নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ...

সিরিজ হারলো বাংলাদেশ

সান নিউজ ডেস্ক: উত্তাল গ্যালারি বাঁধভাঙা উল্লাসে রূপ নিয়েছে।...

বাংলাদেশকে ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক

সান নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশকে ভবিষ্যৎ সংকটের জন্য শহরাঞ্চলের পর...

আলফাডাঙ্গায় অস্ত্রসহ অপহরণকারী গ্রেফতার

বোয়ালমারী প্রতিনিধি : ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা থেকে অপহরণের ১৯ দ...

চট্টগ্রাম-কলকাতা পুনরায় ফ্লাইট চালাবে ইউএস-বাংলা

মোঃ দেলোয়ার হোসেন, নিজস্ব প্রতিবেদক: বৃহত্তর চট্টগ্রামবাসীর...

ইসলামী ব্যাংকে বঙ্গবন্ধুর শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা

সান নিউজ ডেস্ক: ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড এর উদ্যোগে জা...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা